ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বাজারে এখনো তেলের সংকট, বিপাকে ক্রেতারা

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১১:৪৭, ৭ মে ২০২২

বাজারে এখনো তেলের সংকট, বিপাকে ক্রেতারা

দেশে ভোজ্যতেলের দাম রেকর্ড পরিমাণ বাড়ানো হলেও সরবরাহ এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক হয়নি। দেশের প্রধান দুই শহর ঢাকা ও চট্টগ্রামের বাজারে ভোজ্যতেলের সংকট আগের মতোই রয়েছে। পরিস্থিতি এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, বেশি দাম দিয়েও সয়াবিন তেল পাচ্ছেন না ক্রেতারা। খুচরা বিক্রেতারা মনে করছেন, ভোজ্যতেলের বাজার স্বাভাবিক হতে আরো কয়েক দিন লাগতে পারে। 

ব্যবসায়ীদের দাবি অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার তেলের দাম প্রতি লিটারে ৩৮ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করেছে সরকার। বর্তমানে প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ১৯৮ টাকা, খোলা সয়াবিন তেল ১৮০ টাকা এবং পাম সুপার ১৭৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তবে এরপরও বাজারে সয়াবিন তেল পাওয়া যাচ্ছে না। সরেজমিন রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, বেশির ভাগ দোকানেই পাঁচ লিটারের বোতলজাত তেল নেই। এক ও দুই লিটারের বোতলও প্রায় নেই বললেই চলে। কিছু দোকানে খোলা ও এক লিটারের বোতলজাত তেল পাওয়া গেলেও দাম আকাশছোঁয়া। এতে তেল কিনতে আসা ক্রেতারা পড়েছেন বিপাকে। তাদের অভিযোগ, বাড়তি দাম নিতে ব্যবসায়ীরা তেল মজুত করে কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা করছেন।

শুক্রবার (৬ মে) রাজধানীর কারওয়ান বাজারেও ভোজ্যতেলের সরবরাহ কম দেখা গেছে। বিক্রেতাদের কাছে পাঁচ লিটারের বোতল নেই। যে দু-একটি দোকানে ছিল সেখানে এক ও দুই লিটারের বোতল দেখা গেছে।

এদিন কারওয়ান বাজারে প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকায় এবং খোলা সয়াবিন প্রতি লিটার ১৯০ টাকায়। শুধু কারওয়ান বাজারই নয়, রাজধানীর মোহাম্মদপুর, খিলগাঁও, কাঁঠালবাগানসহ অন্যান্য এলাকার চিত্রও ছিল একই রকম। প্রায় একই অবস্থা চট্টগ্রামেরও। 

দোকানিরা বলছেন, কোম্পানির পরিবেশকরা তেল সরবরাহ করছেন না। 

এদিকে আমদানিকারকদের দাবি, বিশ্ববাজারে তেলের দাম বেড়েছে। প্রতি টন সয়াবিন তেলের দাম ১ হাজার ২০০ থেকে বেড়ে ১ হাজার ৮০০ ডলার হয়েছে। তবে বর্তমানে কিছুটা কমে ১ হাজার ৬০০ ডলারে বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি জাহাজ ভাড়া ও অন্যান্য খরচ বেড়েছে। সবকিছু বিবেচনা করে দেশের বাজারে তেলের দাম বাড়াতে হয়েছে।

দেশে ভোজ্যতেল সরবরাহকারী একাধিক শীর্ষ কোম্পানির কর্মকর্তারা জানান, সয়াবিন তেলের নতুন দাম শনিবার (৭ মে) থেকে কার্যকর করা হবে। একই সঙ্গে বাজারে সরবরাহও বাড়বে। খুচরা বাজারে এখন তেলের যে সংকট, তা তিন-চারদিনের মধ্যে কেটে যাবে।