ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ঢাকা বিভাগেই সাড়ে ৩ হাজার মাদক কারবারি

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৪:৩৩, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

ঢাকা বিভাগেই সাড়ে ৩ হাজার মাদক কারবারি

ছবি সংগৃহীত

দেশে দিন দিন নিত্যনতুন মাদকের আমদানি ও ব্যবহার বাড়ছে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন বয়সের ও শ্রেণী-পেশার মানুষের মাদক সংশ্লিষ্টতার খবর যখন উদ্বেগ ছড়াচ্ছে তখনই আরো বেশি আতঙ্কজনক খবর দিল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। তাদের তথ্যমতে, শুধু ঢাকাতেই সাড়ে তিন হাজার মাদক কারবারি রয়েছে।

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঢাকা মেট্রো উত্তরের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ঢাকা বিভাগের প্রধান ও সংস্থার অতিরিক্ত পরিচালক ফজলুর রহমান।

সম্প্রতি রাজধানীর গুলশান, ভাটারা, কুড়িল ও রমনা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫৬০ গ্রাম আইস ও ১ হাজার ২০০ পিস ইয়াবাসহ পাঁচ মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের (ডিএনসি) দাবি, এটি এখন পর্যন্ত ঢাকায় জব্দ হওয়া আইসের সবচেয়ে বড় চালান। এ সময় দুটি প্রাইভেটকারও জব্দ করা হয়, যার আনুমানিক মূল্য কোটি টাকা।

ফজলুর রহমান বলেন, আইস ২০০৭ সালে প্রথম ধরা পড়েছিল। দীর্ঘদিন অস্তিত্ব না থাকলেও ২০১৯ সাল থেকে আবার নতুন করে আইসের প্রভাব বাড়ছে। গত আগস্টে আমরা একজনকে গ্রেফতার করি। তার তথ্যের ভিত্তিতে গত ২১ ও ২২ সেপ্টেম্বর আমরা অভিযান পরিচালনা করি। সেই অভিযানে আমরা ১০ জনের সিন্ডিকেটকে আটক করতে সক্ষম হই। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আমরা আবারো নিজেদের প্রযুক্তি ও মেধা কাজে লাগিয়ে এই পাঁচজনকে গ্রেফতার করি।

তিনি বলেন, মাদকটির প্রতি গ্রামের দামই প্রায় ১০ হাজার ৫০০ টাকা। এই মাদকসেবন ব্যয়বহুল হওয়ায় সচ্ছল পরিবারের ছেলেমেয়েরাই এই মাদকের সঙ্গে জড়িত হয়। গ্রেফতার পাঁচজনও সচ্ছল পরিবারের। যেমন - জাকারিয়া অস্ট্রেলিয়া থেকে পড়াশোনা করে এসেছে। তারেক আহম্মেদ যুক্তরাজ্য থেকে এসেছে। এছাড়া জসিম উদ্দিন দুটি বাড়ি ও গাড়ির মালিক। সবাই অর্থ ও বিত্তশালী।

এরা কেন জড়িয়ে পড়ছে এ মাদকচক্রে - এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের এই কর্মকর্তা বলেন, মূলত এরা প্রলোভনে এই অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়ছে। আইসের দাম অনেক বেশি হওয়ায় মাদকদ্রব্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা অধিক টাকা আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এসব কাজে তাদের নিয়ে আসে।

মাদকের সঙ্গে জড়িত মূলহোতারা কেন আটক হচ্ছে না জানতে চাইলে তিনি বলেন, মূলত গডফাদাররা গা ঢাকা দিয়ে থাকে। অর্থ বিনিয়োগ ও সহযোগিতা করলেও সাধারণত তারা আড়ালে থাকে। আর সংশ্লিষ্টদের এমনভাবে ট্রেইন করা হয়, তাদের যত কিছুই করা হয় মূল হোতাদের তথ্য দিতে চায় না। তারপরেও কেবল ঢাকারই প্রায় ৩ হাজার ৫০০ জনের মতো মাদক কারবারির তথ্য আমাদের কাছে এসেছে। আমরা অভিযান পরিচালনা করছি।

তালিকাকৃতদের একসঙ্গে গ্রেফতার করছেন না কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, তথ্য থাকলেও আটক করার সময়ে তাদের কাছে যদি মাদক না পাওয়া যায় তাহলে আমরা আটক করতে পারি না। আটক করার জন্য তাদের কাছে মাদক থাকতে হয়। আর এখন তারা দিনে চালান না করে রাতে করে কিংবা গভীর সমুদ্রে লেনদেন করে। আমরাও আমাদের কৌশল পরিবর্তন করছি। আমরা অভিযান পরিচালনা করছি।

আইস কোন দেশ থেকে আসছে জানতে চাইলে ফজলুর রহমান বলেন, এই মাদক মূলত মিয়ানমার থেকে আসছে। তিনি আরো বলেন, এই মাদক দেশে তৈরি হওয়ার সুযোগ নেই। যে উপাদান এই আইস উৎপাদনে প্রয়োজন হয় তা আমাদের দেশে পাওয়া যায় না। কিছু উপাদান ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার হলেও এগুলো অনেক আগেই দেশ থেকে ব্যান করা হয়েছে।

ফজলুর রহমান বলেন, ইয়াবা ব্যবসায়ীরাই এই আইসের ব্যবসা শুরু করছে। এখনো বিস্তার বড়ভাবে না হলেও তারা বাজার পাওয়ার চেষ্টা করছে। বেশি দাম হওয়ায় এখনো সেভাবে কাস্টমার পায়নি তারা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঢাকা মেট্রো উত্তরের উপ-পরিচালক মো. রাশেদুজ্জামান ও সহকারী পরিচালক মো. মেহেদী হাসান উপস্থিত ছিলেন।