ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

সেই জবি ছাত্রীর মোবাইল ফোন উদ্ধার, গ্রেফতার ৩

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:১২, ৩ আগস্ট ২০২২

আপডেট: ১৯:৪৭, ৩ আগস্ট ২০২২

সেই জবি ছাত্রীর মোবাইল ফোন উদ্ধার, গ্রেফতার ৩

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বাস থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীর হাত থেকে ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে এ ঘটনায় জড়িত তিন ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

বুধবার (৩ আগস্ট) এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার রুবাইয়াত জামান। জানা গেছে, ওই মোবাইফ ফোনটি বিক্রি করে দুই ছিনতাইকারী মদ কিনে খেয়েছিল। 

রুবাইয়াত জামান বলেন, কারওয়ান বাজারে শফিক নামে একজনের কাছে ৪ হাজার টাকায় মোবাইলটি বিক্রি করেছিল মূল ছিনতাইকারী রিপন ওরফে আকাশ (২৪) এবং তার সহযোগী অপ্রাপ্তবয়স্ক একজন। এর মধ্যে ১ হাজার টাকা নেয় আকাশ এবং ১৭ বছর বয়সী অপরজন নেয় ৫০০ টাকা। বাকি টাকায় তারা মদ কিনে খেয়েছে। 

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগে স্নাতকোত্তর দ্বিতীয় সেমিস্টারে পড়ছেন ওই মোবাইল ফোনের মালিক শিক্ষার্থী। এক বছর ধরে হাতি নিয়ে থিসিস করছেন তিনি। সেই থিসিস পেপার জমা দেয়ার কথা ছিল জুলাইয়ের শেষে।

গত ২১ জুলাই বিকালে কাজ শেষে মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরছিলেন তিনি। পথে কারওয়ান বাজার এলাকায় বাসের জানালা দিয়ে এক ছিনতাইকারী তার ফোনটি ছিনিয়ে নেয়।

মোবাইলে ছিল তার থিসিসের ডেটা। সে কারণে মরিয়া হয়ে ছিনতাইকারীর পিছু ধাওয়া করে তিনি আরেক ছিনতাইয়ের সঙ্গে যুক্ত এক যুবককে ধরে ফেলেন। পরে তার সহযোগীকেও ধরে ফেলা হয়। কিন্তু মূল ছিনতাইকারীকে ধরতে না পারায় নিজের মোবাইল ফোনটি তিনি তখন ফিরে পাননি।

তার সেই সাহসিকতার খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাড়া ফেলে। পুলিশও তখন তার ফোন উদ্ধারে তৎপর হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ২১ জুলাই কারওয়ান বাজারের যেখানে ঘটনাটি ঘটেছিল, সেখানকার সিসিটিভি ভিডিওতে দেখা যায়, একজন মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে দৌড় দিয়েছে। তার পিছু পিছু অন্য একজন দ্রুত হাঁটছে।

রুবাইয়াত জামান বলেন, ভিডিওতে যাকে হাঁটতে দেখা গেছে, সে ওই ১৭ বছরের তরুণ। সন্দেহজনক গতিবিধির কারণে ২৪ জুলাই কারওয়ানবাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

আদালতে তোলার আগে জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করে, সেদিন বাস থেকে মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের সময় সেও ছিল। ফোনটি ছিনিয়ে নিয়েছিল আকাশ। সেটি বিক্রি করে তারা মদ খেয়েছে। পরে সেই রাতেই ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আকাশ গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়।

ওই তথ্য পাওয়ার পর আদালতে আবেদন করে আকাশকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। আকাশ তখন ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, আকাশ ও তার কিশোর সহযোগীর দেয়া তথ্যে মঙ্গলবার কারওয়ান বাজারে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয় শফিককে, যার কাছে বিক্রি করা হয়েছিল ওই ছাত্রীর ফোন। অভিযানে মোবাইলটিও উদ্ধার করা হয়।

বুধবার সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়ে সেই শিক্ষার্থী বলেন, আমি আসলে অনেক খুশি। পুলিশ প্রতিনিয়ত আমাকে আপডেট জানিয়েছে। মোবাইলটা খুব দরকার ছিল। তাই ছিনিয়ে নেয়ার পর ঝুঁকি নিয়ে ছিনতাইকারীকে তাড়া করি।

এদিকে ছিনতাইয়ের ওই ঘটনায় পুলিশের করা মামলায় আকাশ, শফিক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক একজনসহ তিনজনের নামে বুধবারই আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়া হবে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা রুবাইয়াত জামান।