ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ভ্রমণ ভিসায় এসে অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে বিদেশিরা

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৪:৩৭, ১২ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ১৯:২৭, ১২ জানুয়ারি ২০২২

ভ্রমণ ভিসায় এসে অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে বিদেশিরা

বিদেশিরা ভ্রমণ ভিসায় বাংলাদেশে এসে নকল ডলার, প্রতারণা, বিনিয়োগের নামে প্রতারণা, মাদক ব্যবসা ও মানব পাচারসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-৪-এর কমান্ডিং অফিসার মো. মোজ্জাম্মেল হক। 

প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎকারী সাত বিদেশি নাগরিকসহ সংঘবদ্ধ আন্তর্জাতিক প্রতারক চক্রের 
নয় সদস্যকে গ্রেফতারের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে বুধবার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে তিনি এ কথা বলেন। 

মোজ্জাম্মেল হক বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বন্ধুত্ব করে পার্সেল পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে অভিনব কায়দায় তারা প্রতারণা করে আসছিল। এখন পর্যন্ত প্রায় ২ কোটি টাকা প্রতারণা করে তারা বিদেশে পাঠিয়েছে। তারা ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে এবং চাকরিজীবীদের সঙ্গে সামাজিক কাজ করা নিয়ে সম্পর্ক তৈরি করে। 

তিনি বলেন, বিদেশিরা এসেই সাহস পাওয়ার কথা নয়, তারা এদেশের মানুষের মাধ্যমেই এ কাজ করে থাকে। গ্রেফতারকৃত বিদেশি এই গ্রুপকে বাংলাদেশে দুজন সাহায্য করতো। এর মধ্যে সোনিয়া এজেন্ট হিসেবে কাজ করতো। সোনিয়া কাস্টমের লোক সেজে বিভিন্নজনকে ফোন দিত। এখন পর্যন্ত ৩৪টি প্রতারণার কাজে জড়িত বলে সে স্বীকার করেছে। ৩৫ নম্বরে এসে সে আমাদের কাছে ধরা পড়েছে। 

এসব বিদেশি অবৈধভাবে বাংলাদেশে অবস্থান করছিল জানিয়ে তিনি বলেন, সাতজন বিদেশির মধ্যে ছয়জনেরই ভিসার মেয়াদ ছিল না, শুধু একজনের এক মাসের মেয়াদ আছে। তারা উচ্চ ভাড়া দিয়ে বাসা নিয়ে থাকতো। আমার পরিচিত একজন ২৩ লাখ টাকা দেয়ার পর প্রতারিত হয়ে আমার কাছে এলে আমরা পদক্ষেপ নিই।  

প্রতারণা মামলায় আটকরা দ্রুত ছাড়া পেয়ে যায় - এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, প্রতারণা আইনে ৪২০ ও ৪০৬ ধারায় খুব সহজেই জামিনযোগ্য। তবে আমরা চেষ্টা করবো এই মামলায় তাদের যেন জামিন না হয়। তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও ভিসা জালিয়াতির মামলা করা হবে।

তিনি বলেন, আমরা যেন কখনো লোভের বশবর্তী না হই। কারণ প্রতারকরা এটিকেই কাজে লাগায়। এমনকি ফেসবুকে কাদের সঙ্গে আমরা যুক্ত হচ্ছি সে বিষয়ে আরো অধিক সতর্ক থাকতে হবে।   

এর আগে প্রতারণার অভিযোগে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে সাত বিদেশি নাগরিকসহ নয়জনকে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে ছয়জন নাইজেরিয়ান, একজন আফ্রিকান এবং দুজন বাংলাদেশি। 

গ্রেফতারকৃতরা হলেন - উদিজি অবিন্না রুবেন (৪২), নটোমবিকহোনা জিনুজা (৩৬), ইফুনা ভিভিয়ান নাওউইকি (৩১), সানডে সেদেরেক ইজিম (৩২), চিনেদু মোসেস নাজি (৩৬), কোলিমস (৩০), চিদিম্মা ইবেলি (২৬), মো. নাহিদুল ইসলাম (৩০) এবং সোনিয়া আক্তার (৩৩)।