ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ডা. মুরাদের বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যার হুমকির অভিযোগ স্ত্রীর, থানায় জিডি

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৮:৩৫, ৬ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ১৯:০২, ৬ জানুয়ারি ২০২২

ডা. মুরাদের বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যার হুমকির অভিযোগ স্ত্রীর, থানায় জিডি

ডা. জাহানারা এহসান সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের স্ত্রী। তিনি জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ ফোন করে নির্যাতনের অভিযোগ এনেছেন ডা. মুরাদের বিরুদ্ধে। একই সঙ্গে তিনি সহায়তা চেয়েছেন পুলিশের। পরে এ ঘটনায় শারীরিক-মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ করে ধানমন্ডি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন ডা. জাহানারা।  

বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) দুপুরে ৯৯৯-এ ফোন করে ডা. জাহানারা জানান, তাকে মারধর করা হচ্ছে। এমনকি প্রাণনাশেরও হুমকি দেয়া হয়েছে। এ সময় তিনি পুলিশের সহযোগিতা চান। এরপর ৯৯৯ থেকে বিষয়টি জানানো হয় ধানমন্ডি থানা পুলিশকে। পরে পুলিশের একটি টিম ডা. মুরাদের বাসায় যায়।

ধানমন্ডি থানার ওসি ইকরাম আলী মিয়া সংবাদমাধ্যমকে জানান, ৯৯৯ থেকে কল পেয়ে সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের ধানমন্ডির ১৫ নম্বর সড়কের বাসায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতন ও প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ করেছেন ডা. জাহানারা এহসান। 

পরে সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ এনে রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় জিডি করেছেন ডা. জাহানারা এহসান। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ধানমন্ডি থানার ওসি ইকরাম আলী মিয়া। 

তিনি বলেন, মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ তুলে সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেছেন তার স্ত্রী।

প্রসঙ্গত, নারীর প্রতি বিদ্বেষমূলক বক্তব্য ও কয়েকটি অডিও ক্লিপ ফাঁসের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সম্প্রতি তথ্য প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন ডা. মুরাদ। এরপর ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে তিনি কূটনৈতিক পাসপোর্টে ঢাকা ছাড়েন।

কিন্তু কানাডা বর্ডার সার্ভিস এজেন্সির (সিবিএস) কর্মকর্তারা প্রায় ৩ ঘণ্টা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এসময় মুরাদ হাসান কানাডায় ডায়াবেটিকসসহ স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য এসেছেন বলে জানান।

তবে তার উত্তর সিবিএস কর্মকর্তাদের কাছে অবান্তর ঠেকলে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে দেশের উদ্দেশে ফেরত পাঠানো হয়। এমনকি তিনি যাতে ভবিষ্যতে কানাডায় প্রবেশ করতে না পারেন সেজন্য তার আঙুল ও হাতের ছাপ, ছবি এবং স্বাক্ষর সংগ্রহ করে রাখে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ।