ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

মাহবুব কবীর মিলন ইভ্যালির এমডির দায়িত্বে 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:২২, ১৮ অক্টোবর ২০২১

মাহবুব কবীর মিলন ইভ্যালির এমডির দায়িত্বে 

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি পরিচালনার জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
 
হাইকোর্ট বলেছেন, মাহবুব কবীরের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলেছি। কাজের প্রতি তার আগ্রহ দেখে ভালো লেগেছে।
 
মাহবুব কবীর এর আগে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। কিছু সময়ের জন্য ছিলেন কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। এ সময় তিনি খাদ্যে ভেজাল ও নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়ে আলোচিত হন।
 
এর আগে ইভ্যালি পরিচালনার জন্য আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি এইচ এম সামসুদ্দিন চৌধুরী মানিককে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করে দেন হাইকোর্ট।
 
কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন - স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন বিভাগের সাবেক সচিব মোহাম্মদ রেজাউল আহসান, ওএসডিতে থাকা আলোচিত অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট ফখরুদ্দিন আহম্মেদ ও কোম্পানি আইন বিশেষজ্ঞ আইনজীবী ব্যারিস্টার খান মোহাম্মদ শামীম আজিজ।
 
গত বুধবার (১৩ অক্টোবর) বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চের এই কমিটি গঠনের কথা ছিল। সেদিন কমিটি গঠন পিছিয়ে দেয়া হয়।
 
ওইদিন রিটকারী আইনজীবী সৈয়দ মাহসিব হোসাইন জানান, কমিটি গঠনের জন্য হাইকোর্টে প্রস্তাবিত ব্যক্তিদের বিষয়ে বিস্তারিত পর্যালোচনা করে আগামী সপ্তাহে এ বিষয়ে আদেশ দেবেন আদালত।
 
এর আগে ইভ্যালির পরিচালনা কমিটিতে দুই সচিবসহ তিনজনের নামের তালিকা হাইকোর্টে জমা দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ওই তালিকায় ছিলেন - স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব রেজাউল আহসান, সংস্কার বোর্ডের সচিব ইয়াকুব আলী পাটোয়ারী এবং সাবেক সচিব মাকছুদুর রহমান পাটোয়ারী। এর মধ্যে একজনকে রাখা হবে কমিটিতে।
 
গত ১২ অক্টোবর ইভ্যালির বিষয়ে ওঠা প্রতারণার অভিযোগ ও পরিচালনার নিয়ম পর্যালোচনা করতে চার সদস্যের বোর্ড গঠনের নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একজন করে সাবেক বিচারপতি, সচিব, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের সমন্বয়ে এ বোর্ড গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।
 
গত ১১ অক্টোবর ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির সব নথি হাইকোর্টে জমা দেয়া হয়। বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চে এসব নথি দাখিল করেন জয়েন্ট স্টক কোম্পানির রেজিস্ট্রার।
 
গত ৩০ সেপ্টেম্বর এক আদেশে ১২ অক্টোবরের মধ্যে ইভ্যালির নথিপত্র আদালতে দাখিল করতে রেজিস্ট্রার জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মসকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। সে অনুযায়ী নথি দাখিল করা হয়।
 
আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এএম মাছুম ও সৈয়দ মাহসিব হোসেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, রেজিস্ট্রার জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস, ভোক্ত অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর ও প্রতিযোগিতা কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তাপস কান্তি বল।
 
আইনজীবী তাপস কান্তি বল জানান, সব নথি দাখিল করা হয়েছে। যেহেতু এ কোম্পানিটির দুজন মালিকই জেলে তাই একটি কমিটি গঠনের অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন। যে কমিটিতে একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারক, অবসরপ্রাপ্ত সচিব, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট ও একজন আইনজীবী থাকতে পারেন। এ বিষয়ে বুধবার আদেশ দেবেন হাইকোর্ট।
 
এক গ্রাহকের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে গত ২২ সেপ্টেম্বর ইভ্যালির সব ধরনের সম্পদ বিক্রি এবং হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। ওই আদেশের ধারাবাহিকতায় নথি তলবের আদেশ দেন বলে জানান আইনজীবী সৈয়দ মাহসিব হোসেন।