ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

মাদক মামলায় ১০১ জনের কারাদণ্ড, অস্ত্র মামলায় খালাস 

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:৫৭, ২৩ নভেম্বর ২০২২

মাদক মামলায় ১০১ জনের কারাদণ্ড, অস্ত্র মামলায় খালাস 

আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা ব্যবসায়ীরা। ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের টেকনাফে মাদক মামলায় ১০১ জন ইয়াবা ব্যবসায়ীকে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করেছেন আদালত। একই আসামিদের বিরুদ্ধে করা অস্ত্র মামলায় তাদের বেকসুর খালাস দেয়া হয়। 

বুধবার (২৩ নভেম্বর) কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল এই রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার আগে কারাগারে থাকা আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়।  

জানা গেছে, আসামিদের প্রত্যেককে এক বছর ছয় মাস করে কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, টেকনাফে প্রথম দফায় আত্মসমর্পণ করা ১০১ জন ইয়াবা কারবারির বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা করে। মামলাগুলোয় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম।

তিনি জানান, কারাগারে থাকা আসামিদের উপস্থিতিতে মামলার রায় ঘোষণা করেন আদালত। 

এদিকে মামলাগুলোর ১৮ আসামি কারাগারে থাকলেও পলাতক আছেন ৮৩ জন। তাদের মধ্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যক্তিও রয়েছেন। 

প্রভাবশালীদের তালিকায় আছেন : সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির চার ভাই - আবদুল আমিন, আবদুর শুক্কুর, শফিকুল ইসলাম, ফয়সাল রহমান, ভাগিনা সাহেদ রহমান নিপু ও চাচাতো ভাই মোহাম্মদ আলম। আরো আছেন টেকনাফ সদর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান জিহাদ ও তার বড় ভাই আবদুর রহমান, বর্তমান জেলা পরিষদ সদস্য ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমেদের ছেলে দিদার মিয়া, টেকনাফ পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুল বশর নুরশাদ, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের এনামুল হক এনাম মেম্বার, কক্সবাজার শহরের ইয়াবা ডনখ্যাত শাহজাহান আনসারী প্রমুখ।

এদিকে আত্মসমর্পণ করা আসামিদের মধ্যে যাদের জামিন বাতিল করা হয়েছে, তাদের বিষয়ে টেকনাফ থানার ওসি আবদুল হালিম জানান, এ সংক্রান্ত আদালতের কোনো আদেশ হাতে আসেনি। আদালতের আদেশ পেলে আসামিদের গ্রেফতার করা হবে। অবশ্য মামলাগুলোর সর্বশেষ শুনানির দিন অনুপস্থিত থাকায় আদালত ৮৪ জনের জামিন বাতিল করেছেন। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি টেকনাফে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ একদল ইয়াবা কারবারির অবস্থান করার খবর পেয়ে অভিযান চালায় পুলিশ। ওই সময় পুলিশের কাছে ১০২ জন ইয়াবা কারবারি আত্মসমর্পণের ইচ্ছা প্রকাশ করেন। পরে টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের উপস্থিতিতে তারা আত্মসমর্পণ করেন। 

ওইদিনই তাদের আসামি করে টেকনাফ মডেল থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা করা হয়। 

এদিকে মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলাকালে ২০১৯ সালের ৭ আগস্ট মোহাম্মদ রাসেল নামে এক আসামি অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম তামান্না ফারাহের আদালতে ১০১ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা। পরে মামলাটি বিচারের জন্য জেলা ও দায়রা জজ আদালতে পাঠানো হয়। একই বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ ইসমাইল সব আসামির উপস্থিতিতে শুনানি শেষে মামলার চার্জ গঠন করেন। গত ১৫ নভেম্বর শুনানি শেষে মামলার রায় ঘোষণার জন্য ২৩ নভেম্বর দিন ধার্য করা হয়।