ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

কুষ্টিয়ায় ইজিবাইক চালক হত্যা : ১ জনের ফাঁসি, ৩ জনের যাবজ্জীবন 

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬:২১, ৪ আগস্ট ২০২২

কুষ্টিয়ায় ইজিবাইক চালক হত্যা : ১ জনের ফাঁসি, ৩ জনের যাবজ্জীবন 

কুষ্টিয়ায় মাসুদ রানা (২৫) নামে এক ইজিবাইক চালককে হত্যামামলায় একজনকে ফাঁসি ও তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ১ বছর করে কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) দুপুর সাড়ে ১২টায় কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক তাজুল ইসলাম এই রায় দেন। রায় ঘোষণার সময় আসামি তন্ময় এবং শিপলু আদালতে উপস্থিত ছিলেন। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রকিবুল ইসলাম রকিব এবং যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি শামীম পলাতক।

কুষ্টিয়া জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মাসুদ রানা কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার যুগিয়া দুর্গাপাড়া এলাকার ইয়ার আলী মালিথার ছেলে। 

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রকিবুল ইসলাম রাকিব (২৭) কুষ্টিয়া সদর উপজেলার উদিবাড়ি কলোনিপাড়া এলাকার রবিউল ইসলামের ছেলে।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন — একই এলাকার ইউনুস আলীর ছেলে শামীম (২৬), মিজানুর রহমানের ছেলে তন্ময় (২৮) ও টালিপাড়া এলাকার কুটি মিয়ার ছেলে শিপলু (৩৪)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১০ জুলাই মাসুদ রানা রাত ৮টার দিকে অটোরিকশা নিয়ে ভেড়ামারার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হন। এরপর তিনি বাড়ি ফেরেননি। 
পরদিন সকাল সাড়ে ৬টার দিকে স্থানীয়দের দেয়া সংবাদের ভিত্তিতে কুষ্টিয়ার ভাগাড়ের মাঠ থেকে মাসুদ রানার গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় মাসুদ রানার বাবা ইয়ার আলী মালিথা বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি হত্যামামলা করেন।

মামলার তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ৩০ নভেম্বর দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের অভিযুক্ত করে আদালতে মামলার চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। পরে মামলার দীর্ঘ শুনানি এবং ১০ সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বৃহস্পতিবার এই রায় ঘোষণা করেন আদালত।

পিপি অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, রায় ঘোষণার সময় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রকিবুল ইসলাম রাকিব এবং যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি শামীম পলাতক ছিলেন। তাই বাকি দুই আসামি তন্ময় এবং শিপলুর উপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করা হয়। পরে কড়া পুলিশ পাহারায় তাদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।