ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

‘জুরাইনের ঘটনায় পুলিশ-আইনজীবী যেই অপরাধ করুক, বিচার হবে’

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১২:১৯, ১৪ জুন ২০২২

‘জুরাইনের ঘটনায় পুলিশ-আইনজীবী যেই অপরাধ করুক, বিচার হবে’

রাজধানীর জুরাইনে পুলিশের ওপর হামলার মামলায় দুই আইনজীবীসহ পাঁচ জনকে রিমান্ডে নেওয়ার ঘটনায় আপিল বিভাগ বলেছেন, ‘পুলিশ যদি অপরাধ করে, তার বিচার হবে। আইনজীবী অপরাধ করলে তারও বিচার হবে। যে অপরাধ করেছে, তার বিচার হবে।

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ আজ মঙ্গলবার এ মন্তব্য করেন।

আদালতে রিটের পক্ষের আইনজীবীদের উদ্দেশে আপিল বিভাগ বলেন, ‘আপনারা বিচারিক আদালতে দুই আইনজীবীর জামিন আবেদন করুন। তাঁরা জামিন না দিলে হাইকোর্টে জামিন আবেদন করুন। হাইকোর্টে জামিন না দিলে তারপর আমরা দেখব।’

পরে আদালত আগামী রোববারের মধ্যে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ টু আপিল করতে নির্দেশ দেন এবং শুনানি মুলতবি করেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন, অ্যাডভোকেট মুরাদ রেজা, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল ও ব্যারিস্টার অনিক আর হক।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মেহেদী হাছান চৌধুরী ও শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ।

গত ১২ জুন রাজধানীর জুরাইনে ট্রাফিক পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে করা মামলায় দুই আইনজীবীকে রিমান্ডে নেওয়ার ঘটনায় মামলার নথি তলবের আদেশ স্থগিত করেন চেম্বার আদালত।

এর আগে এ ঘটনায় গত ৮ জুন দায়ের হওয়া মামলায় দুই আইনজীবীসহ পাঁচ জনের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ড পাওয়া আসামিরা হলেন—শিক্ষানবিশ আইনজীবী সোহাবুল ইসলাম রনি, তাঁর শ্যালক আইনজীবী ইয়াসিন আরাফাত, স্থানীয় বাসিন্দা মো. শরীফ, মো. নাহিদ ও মো. রাসেল।

এদিকে, মামলার একমাত্র নারী আসামি আইনজীবী ইয়াসিন জাহান ভূঁইয়া নিশানের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন আদালত। তবে, আইনজীবীদের বিক্ষোভের মুখে রিমান্ড আপাতত স্থগিত রয়েছে বলে জানা গেছে।

ঘটনার সময় জুরাইন রেলগেট এলাকায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) বিপ্লব ভৌমিক দাবি করেন, ৭ জুন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাস্তায় অনেক যানজট থাকা সত্ত্বেও উল্টোপথে মোটরসাইকেলে করে আসছিলেন রনি ও নিশান। এ সময় সার্জেন্ট মো. আলী তাঁদের গতিরোধ করে কাগজপত্র চাইলে তাঁর ওপর চড়াও হন মোটরসাইকেল আরোহীরা। এ সময় তাঁরা আশপাশের লোকজনকে ডাকাডাকি করে পুলিশের বিরুদ্ধে উসকে দেওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করতে থাকেন। পরে নিশান তাঁর ছোটভাই ইয়াসিনকে ফোন করে লোকজনসহ আসতে বলেন।

এদিকে, খবর পেয়ে ইয়াসিন সাড়ে ৩০০ থেকে সাড়ে ৪০০ জন লোক নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সার্জেন্ট মোহাম্মদ আলীকে এলোপাতাড়ি মারধর করে রক্তাক্ত ও জখম করেন। পাশাপাশি হামলাকারীরা ট্রাফিক পুলিশ বক্স ভাঙচুর শুরু করেন।

ওই ঘটনাস্থলে আসা কদমতলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) উৎপল দত্ত অপু মারধরের শিকার হন। বর্তমানে সার্জেন্ট মো. আলী রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতাল চিকিৎসাধীন। আর এসআই উৎপল দত্ত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

ওই ঘটনায় ট্রাফিক সার্জেন্ট মো. আলী হোসেন বাদী হয়ে সাড়ে ৪০০ জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলায় সরকারি কাজে বাধা দেওয়া, সরকারি সম্পত্তি নষ্ট এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

অন্যদিকে, ঘটনার সূত্রপাতের পরপরই জুরাইন রেলগেট পুলিশ বক্সের ভেতরে ফেসবুক লাইভে সোহাগ-উল ইসলাম রনি অভিযোগ করেন, ঘুস নেওয়ার সময় তিনি উপস্থিত হলে পুলিশ সদস্যেরা তাঁর সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ান। এ ছাড়া পুলিশ বক্সে নিয়ে মারধরও করা হয়। পরে উত্তেজিত জনতা পুলিশ বক্সে হামলা চালায় এবং পুলিশ সদস্যদের মারধর করে।