ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বরখাস্ত ডিআইজি পার্থ গোপালের ৮ বছরের জেল

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৪:০১, ৯ জানুয়ারি ২০২২

বরখাস্ত ডিআইজি পার্থ গোপালের ৮ বছরের জেল

বরখাস্তকৃত কারা উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) পার্থ গোপাল বণিককে দুর্নীতির দায়ে দুটি ধারায় মোট আট বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রোববার (৮ জানুয়ারি) ঢাকার ৪ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় ঘোষণা করেন।  

ঘুষ নেয়া ও দুর্নীতির দুই অভিযোগে পার্থ গোপাল বণিককে পাঁচ বছর ও তিন বছরের কারাদণ্ড দেয়ার পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে, অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে তাকে। এছাড়া ‘দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত’ তার ৬৫ লাখ ১৪ হাজার টাকা রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করতে বলা হয়েছে রায়ে। অবশ্য মুদ্রাপাচারের অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন তিনি। 

দুই ধারার সাজা একসঙ্গে কার্যকর হবে বলে সাবেক এই ডিআইজিকে সবমিলিয়ে সাজা খাটতে হবে পাঁচ বছর। এর মধ্যে থেকে হাজতবাসকালীন সময় বাদ যাবে।  

রায়ের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় পার্থ গোপাল বণিক জানান, তিনি উচ্চ আদালতে আপিল করবেন।

বরখাস্ত হওয়ার আগে পার্থ গোপাল বণিক ছিলেন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের ডিআইজি (প্রিজন্স)। ২০১৯ সালে তার বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকা উদ্ধারের পর এই মামলা করে দুদক। মামলায় অভিযোগ করা হয়, সরকারি দায়িত্ব পালনকালে ঘুষ, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে ওই অর্থ সংগ্রহ করে বাসায় লুকিয়ে রেখেছিলেন পার্থ গোপাল বণিক। 

মামলায় আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর নগদ ৪৪ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, দুই কোটি ৫০ লাখ টাকার এফডিআর, এক কোটি ৩০ লাখ টাকার চেক ও ফেনসিডিলসহ কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ট্রেন থেকে গ্রেফতার করা হয় চট্টগ্রামের তখনকার জেলার সোহেল রানা বিশ্বাসকে। সে সময় তিনি গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে নিজের ঘুষবাণিজ্যের পেছনে সহায়ক শক্তি হিসেবে সেখানকার তৎকালীন ডিআইজি পার্থ গোপাল বণিকের নাম বলেন।

ওই সূত্র ধরে দুদকের অনুসন্ধানী দল পার্থ গোপালকে সেগুনবাগিচার কার্যালয়ে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ২০১৯ সালের ২৯ জুলাই তার ভূতের গলির ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে ৮০ লাখ টাকা উদ্ধার করে দুদক। 

দুদক কর্মকর্তারা সে সময় বলেছিলেন, উদ্ধার হওয়া টাকার মধ্যে পার্থের ফ্ল্যাটের দেয়াল কেবিনেটে গেঞ্জিতে মোড়ানো ছিল ৫০ লাখ টাকা। একটি স্কুলব্যাগ থেকে উদ্ধার করা হয় বাকি ৩০ লাখ টাকা।

আটকের সময় পার্থ সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, এই ৮০ লাখ টাকা তার বৈধ আয় থেকে অর্জিত। এর মধ্যে ৩০ লাখ টাকা তার শাশুড়ি দিয়েছেন, বাকি ৫০ লাখ টাকা তার সারাজীবনের জমানো অর্থ। ফ্ল্যাটের নিচে থাকা তার ব্যবহারের গাড়িটির মালিকও তিনি নন, তার বন্ধুর গাড়ি ব্যবহার করেন। যে ফ্ল্যাটে থাকেন তাও তার শাশুড়ির বলে দাবি করেন তিনি।

পরদিন দুদকের সহকারী পরিচালক মো. সালাহউদ্দিন বাদী হয়ে এ মামলা করেন। পার্থ গোপাল বণিককে সাময়িক বরখাস্ত করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এক বছরের বেশি সময় তদন্তের পর ২০২০ সালের আগস্টে এ মামলায় অভিযোগপত্র দেন তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক মো. সালাহউদ্দিন।

সেখানে বলা হয়, পার্থ গোপাল বণিক সরকারি চাকরিতে দায়িত্ব পালনকালে ক্ষমতার অপব্যবহার করে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও ঘুষের মাধ্যমে ৮০ লাখ টাকা অবৈধভাবে অর্জন করেন। এসব টাকা গোপন করে তার নামীয় কোনো ব্যাংক হিসাবে জমা না রেখে বিদেশে পাচারের জন্য নিজ বাসস্থানে লুকিয়ে রেখে দণ্ডবিধির ১৬১ ধারা, দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, ২০০৪ এর ২৭(১) ধারা, দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন, ১৯৪৭ এর ৫(২) ধারা এবং মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ৪(২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

২০১৪ সালে পদোন্নতি পেয়ে কারা উপ-মহাপরিদর্শক হওয়ার পর পার্থ গোপাল বণিকের বেতন স্কেল হয় ৩১ হাজার ২৫০ টাকা। অভিযোগপত্রে বলা হয়, তার বাসায় পাওয়া অর্থ ওই বেতন স্কেলের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। তিনি কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে ওই টাকা তোলেননি, কখনো ওই অর্থ আয়কর বিবরণীতেও প্রদর্শন করেননি।

২০২০ সালের ৪ নভেম্বর অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে পার্থ গোপালের বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। সে সময় তিনি জামিনে থাকলেও পরে হাইকোর্ট তা বাতিল করেন।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক জামিন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আদালতে তিনি সাফাই সাক্ষ্য দিয়েছিলেন।