ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

প্রতিদ্বন্দ্বীদেরও ভোট পেলেন হাসান মিয়া!

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:১৯, ১ ডিসেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৫:২৪, ১ ডিসেম্বর ২০২১

প্রতিদ্বন্দ্বীদেরও ভোট পেলেন হাসান মিয়া!

নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকবে - এটাই স্বাভাবিক। কেউ না দিলেও অন্তত নিজের ভোটটি নিজের মার্কায় দেবেন প্রার্থীরা - এটাও চিরন্তন সত্য। কিন্তু এবার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ফলে দেখা গেছে একেবারে ব্যতিক্রমধর্মী অকল্পনীয় ঘটনা। এক ইউপি সদস্য প্রার্থী নির্বাচনে গৃহীত হওয়া সব ভোট পেয়েছেন!   

ঘটনাটি ঘটেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মানিকপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে। যিনি এই অভাবনীয় ঘটনার নায়ক তার নাম  হাসান মিয়া ওরফে কাজী সালাউদ্দিন। তার প্রতীক ছিল বৈদ্যুতিক পাখা। 

জানা গেছে, গত ২৮ নভেম্বর এই ইউনিয়নে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এখানে সাধারণ সদস্য পদে সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তারা হলেন - কাউসার মিয়া (ভ্যানগাড়ি), মোতালিব মিয়া (ঘুড়ি), মো. আলমগীর (আপেল), জাহাঙ্গীর হোসেন (তালা), মিস্টার আলী (ফুটবল), সফিকুল ইসলাম (মোরগ) ও হাসান মিয়া (বৈদ্যুতিক পাখা)।

৪ নম্বর ওয়ার্ডে একমাত্র ভোটকেন্দ্র মায়ারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই ভোটকেন্দ্রের মোট ভোটার সংখ্যা দুই হাজার ১৬৩। কেন্দ্রটিতে ভোট দিয়েছেন এক হাজার ১৬১ জন ভোটার। এর মধ্যে বৈধ ভোট দেখানো হয়েছে এক হাজার ১৫৫টি এবং বাতিল ভোট ছয়টি। তবে বৈধ এক হাজার ১৫৫টি ভোটের সবই পেয়েছেন হাসান মিয়া। প্রিসাইডিং অফিসারের সই করা নির্বাচনের ফলাফল শিটে এ তথ্য দেখা যায়। 

এ বিষয়ে বিজয়ী হাসান মিয়া বলেন, ‘অন্য প্রার্থীরা আমাকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। গ্রামবাসীও আমাকে সমর্থন দিয়েছেন। তাই আমি এত ভোট পেয়েছি।’

হাসান মিয়ার বক্তব্য সরল-সাধারণ হলেও মানতে রাজি নন তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। এছাড়া এ ফলাফল নিয়ে আলোচনা-সমালোচনাও চলছে ওই এলাকায়। সাধারণ সদস্য পদে মোরগ প্রতীকের প্রার্থী সফিকুল ইসলাম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিয়েছি। আমি আমার ভোটটি নিজের প্রতীকেই দিয়েছি। কিন্তু তারপরও প্রাপ্ত ভোটের ফলাফলে শূন্য উল্লেখ করা হয়েছে।’

আরেক প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ভোটের দুদিন আগে স্থানীয় নেতারা এসে এক প্রার্থীকে সিলেক্ট করার কথা জানিয়ে তাকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে বলেন। সেজন্য ক্ষোভে তিনি কেন্দ্রেই যাননি।

প্রতিদ্বন্দ্বী দুজনের বক্তব্য পাওয়া গেলেও অন্য চারজনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

এদিকে ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার হুসাইন মোহাম্মদ বেলাল বলেন, ‘ভোটের আগের দিন শুনেছি, সদস্যপদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারীদের মধ্যে একজনকে সমর্থন দিয়ে অন্য প্রার্থীরা সরে দাঁড়িয়েছেন।’ 

তিনি আরো বলেন, ‘আমার কেন্দ্রে ভোটগ্রহণে কোনো ধরনের সমস্য হয়নি। আমার কাছে কেউ কোনো অভিযোগও করেননি।’