ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

কুড়িগ্রাম ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৯:২৯, ১৩ অক্টোবর ২০২১

আপডেট: ১৯:৪৯, ১৩ অক্টোবর ২০২১

কুড়িগ্রাম ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ

সড়ক আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ

কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর জেলা ছাত্রলীগের একদল উচ্ছৃঙ্খল নেতাকর্মীর হামলার ঘটনায় সংগঠনটির সভাপতি রাজু আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ পাঠানো হয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগে।  

জানা গেছে, কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার আগেই সোমবার (১১ অক্টোবর) রাতে সার্কিট হাউসে কেন্দ্রীয় নেতা সাখাওয়াত হোসেন শফিকের অভ্যর্থনায় অপেক্ষমাণ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগ সভাপতি রাজু আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে একদল নেতাকর্মী হামলা চালায়। এতে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক, মহিলা নেত্রীসহ প্রায় ২০ জন নেতাকর্মী আহত হন। ভাঙচুর করা হয় সার্কিট হাউসের দরজা-জানালাও। কেন্দ্রীয় নেতার উপস্থিতিতেই ছাত্রলীগ এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটায়। 

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত বর্ধিত সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ঘটনার সঙ্গে জড়িত জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাজু আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে জেলা আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ ফোরাম একমত হয়ে রেজুলেশন করে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের মাধ্যমে দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর পাঠিয়েছে।

একই সঙ্গে এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দলের নাম ভাঙিয়ে রাস্তায় আগুন জ্বেলে যারা ব্যারিকেড সৃষ্টি করেছে, তাদেরও সতর্ক করা হয়েছে।

রেজুলেশনে আহত জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আ. ন. ম ওবায়দুর রহমান, কৃষিবিষয়ক সম্পাদক শাহানাজ বেগম নাজু, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হাফেজ আব্দুল ওয়াহেদ, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য মাহফুজুর রহমানসহ আহতদের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করা হয়।

এছাড়া হামলাকারীদের মদতদাতাদের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ও ভাবমূর্তি ভঙ্গের অপরাধে যুক্ত থাকার বিষয়টি তদন্তসাপেক্ষে সাংগঠনিক ও আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। 

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় কমিটি ও রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শফিক সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, সন্ত্রাসীরা আওয়ামী লীগের কেউ হতে পারে না। সোমবার যা ঘটেছে তা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার কোনো সম্পর্ক নেই। এটা আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোনো ঘটনাও নয়। কারো ছায়াতলে থেকে কেউ দলের ভেতর বিভেদ ও বিভাজন করার চেষ্টা করছে।

আহত আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা উল্লেখ্য, সোমবার রাত ৯টার দিকে কুড়িগ্রাম সার্কিট হাউসে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সফিকের উপস্থিতিতে হামলা চালায় ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। এতে জেলা আওয়ামী লীগের ২০ নেতাকর্মী আহত হন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনার পরদিন মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে কুড়িগ্রাম সার্কিট হাউসে স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে সামনে রেখে দলকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে বর্ধিত সভা শুরু হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সফিক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য ও সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া ও অ্যাডভোকেট সফুরা বেগম। 

জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. জাফর আলীর সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দিন আহমেদ মন্জু।কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা

বর্ধিত সভায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এবং কুড়িগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য মো. জাকির হোসেন, কুড়িগ্রাম-১ আসনের সংসদ সদস্য আসলাম হোসেন সওদাগর, কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য এমএ মতিনসহ জেলা ও উপজেলা দলীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন। 

এদিকে হামলার প্রতিবাদে ও হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত শহরের ত্রিমোহনী ও বাস টার্মিনাল এলাকায় সড়ক অবরোধ করেন যুবলীগ নেতাকর্মীরা।