ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

হারিয়ে যাচ্ছে রাণীশংকৈলের টংকনাথের রাজবাড়ি

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭:২৪, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

হারিয়ে যাচ্ছে রাণীশংকৈলের টংকনাথের রাজবাড়ি

সংস্কার ও সংরক্ষণের অভাবে ধ্বংসের পথে ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার ঐতিহাসিক টংকনাথের রাজবাড়ি। কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগে প্রতিষ্ঠিত প্রাচীন ইতিহাসের সাক্ষী এ রাজবাড়ি যেকোনো সময় ধসে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। তবে ঝুঁকিপূর্ণ জেনেও ঐতিহাসিক এই রাজবাড়ি একনজর দেখতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন অনেকেই আসেন। 

ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগে নির্মিত এ রাজবাড়ি রানীশংকৈল উপজেলার কাতিহারে কুলিক নদীর তীরে অবস্থিত। জানা যায়, সেখানে গোয়ালা বংশের এক নিঃসন্তান জমিদার বাস করতেন। সেই জমিদারের শ্যামরাই মন্দিরে সেবায়েত হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন অনেকে। নিঃসন্তান বৃদ্ধ গোয়ালা জমিদার ভারতের কাশীবাসে যজ্ঞে যাওয়ার সময় তার সমস্ত জমিদারি সেবায়েতের তত্ত্বাবধানে রেখে যান। তাম্রপাতে দলিল করে যান যে, তিনি কাশী থেকে ফিরে না এলে শ্যামরাই মন্দিরের সেবায়েত এই জমিদারির মালিক হবেন।

পরে জমিদার ফিরে না আসায় বুদ্ধিনাথ চৌধুরী জমিদারি পেয়ে যান। রাজা টংকনাথের পিতা বুদ্ধিনাথ চৌধুরী রাজবাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু করলেও সমাপ্ত করেন তার ছেলে। ব্রিটিশ সরকারের কাছে চৌধুরী ও দিনাজপুরের মহারাজা গিরিজনাথ রায়ের কাছ থেকে রাজা পদবি পান টংকনাথ।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসন অবসানের পর টংকনাথ সপরিবারে ভারতে চলে যান। পরে রাজবাড়িকে সরকারি সম্পদ হিসেবে অধিগ্রহণ করে সরকারের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ। 

অপূর্ব নির্মাণশৈলীর এ বাড়ির প্রতি বরাবরই দর্শনার্থীদের আকর্ষণ ছিল। বিশেষ করে বাড়িটির মার্বেল পাথর ও দারুণ কারুকার্য দৃষ্টি কাড়ত সবার। বর্তমানে রাজবাড়ির অনেক অংশই নষ্ট হয়ে গেছে। প্রায় ১০ একর জুড়ে নির্মিত এ প্রাসাদ এখন পর্যন্ত সুরক্ষা বা সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ।

রাজবাড়ির পূর্বদিকে দুটি পুকুর রয়েছে, যা ময়লা-আবর্জনায় পূর্ণ। পুকুরের ঘাটগুলো ভেঙে গেছে, সংস্কার করা হয়নি। দ্বিতল ভবনবিশিষ্ট এ রাজপ্রাসাদের ভেতরে রয়েছে ৮০টির মতো ঘর। কিন্তু সংস্কার ও সংরক্ষণের অভাবে ঘরগুলোর জীর্ণ দশা। 

যে কোনো মুহূর্তে ধসে পড়তে পারে এ রাজপ্রাসাদটি। এর মধ্যে প্রাসাদের ভেতরে দ্বিতল ভবনে ওঠার সিঁড়ির প্রায় ৪ ফিট ধসে পড়েছে। নষ্ট হয়ে গেছে বাড়ির বেশ কিছু অংশ। চুরি হয়ে যাচ্ছে বাড়ির অবকাঠামো তৈরির লোহা, দরজা, জানালা ও বিভিন্ন জিনিস। 

হারিয়ে যেতে বসা এ রাজবাড়িটি স্থানীয় প্রশাসনের কাছে বারবার সংস্কার করে পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার দাবি জানিয়েছেন রানীশংকৈল উপজেলার সব শ্রেণি-পেশার মানুষ।

রাজবাড়ি ঘুরতে আসা মরিয়ম নামে এক দর্শনার্থী বলেন, আগে প্রায়ই ঘুরতে আসতাম এখানে। কিন্তু এখন সেই পরিবেশ আর নেই।

সামাজিক নিরাপত্তার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ভেতরের স্থাপনাগুলো লতাপাতা ও পরগাছায় ছেয়ে গেছে। এ সুযোগে মাদকসেবীরা সেখানে মাদক ও জুয়ার আসর বসিয়েছে। নিরাপত্তার কথা ভেবে আর সামনে যাইনি।

পরিবার নিয়ে ঠাকুরগাঁও থেকে ঘুরতে আসা রফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, সরকার উদ্যোগ নিলে এখনো এই রাজবাড়িকে পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় ও নিরাপদ করে তুলতে পারবে।

রাজবাড়িতে ঘুরতে আসা কলেজছাত্র লিমন বলেন, এই রাজবাড়িটি খুব সুন্দর। সে কারণেই এখানে বেশ কয়েকবার আসা হয়েছে। কিন্তু এখানে কোনো ধরনের স্যানিটেশন ব্যবস্থা না থাকায় সমস্যায় পড়তে হয়। বিশেষ করে নারীদের দুর্ভোগের শিকার হতে হয় বেশি।

স্থানীয় বাসিন্দা সাহাবুদ্দিন বলেন, বাড়িটি সংরক্ষণ করা গেলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এ অঞ্চলের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবে। না হলে এর স্থাপত্যগুলো অচিরেই ধ্বংস হয়ে যাবে।

একই উপজেলার জগদল বাজারের স্কুলশিক্ষক আলতাফ হোসেন বলেন, ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে থাকা টংকনাথের রাজবাড়িতে এখন সন্ধ্যা হলেই শুরু হয় আপত্তিকর কার্যকলাপ। অবাধে বসছে মদ, জুয়া ও গাঁজার আসর। একইভাবে দিনের বেলায় থাকে গরু-ছাগলের দখলে। যেন রাজবাড়িটি গোচারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। এসব দেখার যেন কেউ নেই।

এ বিষয়ে রানীশংকৈল ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মো. তাজুল ইসলাম বলেন, রাজা টংকনাথ ভারতে চলে যাওয়ার পরে সরকার রাজবাড়িকে সরকারি সম্পদ হিসেবে অধিগ্রহণ করলেও এতদিন স্থানীয়রা দখল করে রেখেছিল। বছর দুয়েক আগে জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাড়িটি দখল মুক্ত করা হয়। কিন্তু এ সময়টাতে সরকারের তদারকির অভাবে স্থানীয় প্রভাবশালীদের কবলে পড়ে রাজবাড়ির মূল্যবান সম্পদ চুরি ও লুট হয়ে যায়। দখলকারীরা অনেকে বাড়ির ইটসহ নানা স্থাপনা নিয়ে চলে গেছে। বাড়ির অবকাঠামো চুরি না হলে এ ভঙ্গুর দশা থেকে আরো ১০০ বছর পর্যন্ত বাড়িটি সগর্বে দাঁড়িয়ে থাকত।

তিনি আরো বলেন, এরই মধ্যে এ উপজেলার ৪টি জমিদারবাড়ি বিলুপ্ত হয়ে গেছে। এর মধ্যে জগদল ধর্মগড় গ্রামে জমিদার ধীরেন্দ্রনাথ রায়ের বাড়িটি অন্যতম। টংকনাথে রাজবাড়িটিও মনে হচ্ছে ধ্বংস হয়ে যাবে।

ঐতিহাসিক নিদর্শন রক্ষা করা সবার দায়িত্ব জানিয়ে অধ্যাপক তাজুল ইসলাম বলেন, বাড়িটি সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কয়েক বছর আগে তৎকালীন জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন উদ্যোগ গ্রহণ করে। কিন্তু এখন পর্যন্ত এর সুরক্ষা বা সংস্কারের কোনো ব্যবস্থা চোখে পড়েনি। এ ঐতিহাসিক স্থাপনাটি সংস্কার করা হলে এটিকে ঘিরে গড়ে উঠতে পারে পর্যটনকেন্দ্র। এতে সরকারের রাজস্ব আয় যেমন বাড়বে, তেমনি ঐতিহাসিক এ রাজবাড়ি দর্শনার্থীদের মনের খোরাক জোগাবে।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, রানীশংকৈলে টংকনাথের রাজবাড়িকে সংরক্ষণ ও পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার বিষয়ে একটি এস্টিমেট (সম্ভাব্য কার্যসূচি ও আয়-ব্যয়ের হিসাব) তৈরি করে প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগে পাঠানো হবে।