ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

চৌদ্দগ্রামে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মুখরিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫:১৪, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১

চৌদ্দগ্রামে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মুখরিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মুখরিত কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ দেড় বছর পর আজ রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। 

প্রিয় শিক্ষাঙ্গনে ফিরতে পেরে আনন্দে উদ্বেলিত শিক্ষার্থীরা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যেও ছিল উচ্ছ্বাসের ঝিলিক। অনেক স্থানে শিক্ষালয়ের পরিচালনা পরিষদ ও শিক্ষকদের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে বরণ করে নিতে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের। 

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় সরকারি নির্দেশনা অনুসারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে করা হবে পাঠদান। কোথায় কীভাবে ক্লাস হবে, করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষায় কী ব্যবস্থা নিতে হবে - সে সম্পর্কিত বিস্তারিত নির্দেশনা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় আগেই পাঠিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর (মাউশি)। সে নির্দেশনার আলোকে শিক্ষাঙ্গনগুলো নিয়েছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নানা কার্যক্রম।

অবশ্য শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, সামনে সংক্রমণ বাড়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হলে প্রয়োজনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আবার বন্ধ করে দেয়া হতে পারে।

চৌদ্দগ্রাম পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জামাল হোসেন বলেন, অনেকদিন পর খুলেছে স্কুল। এতদিন অপেক্ষার পর স্কুলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে ক্লাস করতে পেরে বেশ আনন্দিত বোধ করছি। আগের মতো মুখোমুখি বসে ক্লাস নিলাম। ফিরে এসেছে সেই পুরনো চিত্র। এটা সত্যিই আনন্দের। এ এক অন্যরকম অনুভূতি।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মনজুরুল হক বলেন, প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর আজ (১২ সেপ্টেম্বর) উৎসবমুখর পরিবেশে সারাদেশের মতো চৌদ্দগ্রামের সকল স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় শ্রেণি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। করোনা থেকে শিক্ষার্থীদের শতভাগ সুরক্ষিত রাখার জন্য প্রয়োজনীয় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এ বিষয়ে উপাজেলা শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের আগেই প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেয়া হয়েছে। দীর্ঘ সময় পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দিনটিকে উৎসবমুখর ও স্মরণীয় করার লক্ষ্যে উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও শিক্ষকেরা ফুল, কলম, চকলেট ইত্যাদি উপহার দেয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিয়েছেন।