ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

৩ ঘণ্টায় ৫৫ মিমি বৃষ্টি, সিলেটে পানিবন্দি ৭ লাখ মানুষ

সিলেট প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 13:23, 19 June 2024

৩ ঘণ্টায় ৫৫ মিমি বৃষ্টি, সিলেটে পানিবন্দি ৭ লাখ মানুষ

ছবি : সংগৃহীত

আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছিল সিলেট অঞ্চলে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে বুধবার (১৯ জুন) বিকেল পর্যন্ত ২০০ মিলিমিটার বৃষ্টি হতে পারে। সেই পূর্বাভাসকে সত্যি করে রাত থেকে অবিরাম ঝরছে বৃষ্টি।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘন্টায় (মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে বুধবার ৬টা পর্যন্ত) ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে এবং বুধবার সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত বৃষ্টি ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টি ঝরেছে। এ অবস্থা আরো কয়েকদিন থাকবে।

এত করে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত সুরমা-কুশিয়ারাসহ জেলার প্রধান সব নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসনের তথ্য মতে, পাহাড়ি ঢল ও অতিবৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যায় সিলেটে প্রায় ৭ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। এছাড়া, ৬২৭ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন ১৭ হাজার ২৮৫ জন মানুষ।

এর মধ্যে, সবচেয়ে বেশি ৭ হাজার মানুষ কোম্পানীগঞ্জের বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছেন। বন্যা পরিস্থিতি আরো অবনতি হওয়ার আশঙ্কা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। আগামী ৭২ ঘণ্টা ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

এদিকে টানা বর্ষণে এবং উজানের ঢলে সকাল ৯টা পর্যন্ত সিলেটের ৩টি নদীর পানি ৬ পয়েন্টে বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। সরকারি এ প্রতিষ্ঠানটির তথ্যমতে, সুরমা নদীর কানাইঘাট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ৯১ সেন্টিমিটার উপরে প্রবাহিত হচ্ছে। একই নদীর সিলেট পয়েন্টে পানি বইছে বিপৎসীমার ৩৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে।
 
কুশিয়ারা নদীর আমলশীদ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৪৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। একই নদীর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে ৯২ ও শেরপুর পয়েন্টে  বিপৎসীমার ১২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি বইছে।
 
এছাড়া সারি-গোয়াইন নদীর সারিঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ০.৯ সে.মি সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।
 
২০২২ সালের পর এবার সিলেট বিভাগের মানুষ আবারও বন্যা পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছে। টানা বর্ষণ এবং উজানের ঢলের কারণে সৃষ্ট বন্যায় সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলার নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। সিলেট মহানগরীরও বিভিন্ন এলাকায় পানি ঢুকছে বলে জানা গেছে। এ বছরের চলমান দ্বিতীয় দফা বন্যা পরিস্থিতিতে মহানগর ও জেলাজুড়ে প্রায় ৭ লাখ মানুষ পানিবন্দি রয়েছেন বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। এর মধ্যে মহানগরে ২১টি ওয়ার্ডের অর্ধলক্ষ মানুষ বন্যা কবলিত।
 
গত ২৭ মে সিলেটে আগাম বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ২০ দিনের মাথায় দ্বিতীয় দফা বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে সিলেট।  সিলেট জেলা প্রশাসনের সর্বশেষ তথ্য বলছে, মহানগরের ২১টি ওয়ার্ড ও জেলার ১ হাজার ৩২৩টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে ৬ লাখ ৭৫ হাজার ৯৩৭ জন মানুষ বন্যাকবলিত। এর মধ্যে সিলেট মহানগরে অর্ধ লাখের বেশি মানুষ পানিবন্দি।
 
বন্যাপরিস্থিতি মোকাবিলায় জেলা ও মহানগর মিলিয়ে ৬২৭টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এর মধ্যে মহানগরে ৮০টি। এসব আশ্রয়কেন্দ্রে ১৭ হাজার ২৮৫ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। তবে, বেশিরভাগ মানুষজন নিজের ঘর-বাড়ি ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে ইচ্ছুক নন। অনেকেই আশ্রয় নিয়েছেন পাড়া-প্রতিবেশিদের উঁচু বাসা-বাড়ি বা আত্মীয়-স্বজনের ঘরে।
 
সিলেট মহানগরীর শাহজালাল উপশহর প্রায় পুরোটাই পানির নিচে। অনেকের বাসার নিচতলায় গলা পর্যন্ত পানি। কয়েকটি উপজেলার পথঘাট তলিয়ে যাওয়ায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। অনেক কৃষিজমির ফসল তলিয়ে গেছে, ভেসে গেছে পুকুর।

সরেজমিনে নগরীর শাহজালাল উপশহর, ঘাসিটুলা, মাছিমপুর, ছড়ারপার, তালতলা, কুয়ারপার, মেন্দিবাগ, কামালগড়, চালিবন্দর, যতরপুর, সোবহানিঘাট, কালীঘাট, শেখঘাট, তালতলা, জামতলা ঘুরে দেখা যায়, বাসা-বাড়িতে হাঁটু সমান পানি। এসব এলাকার বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, রিজার্ভ ট্যাংকে নর্দমার পানি প্রবেশ করায় বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে।

এছাড়া সীমান্তবর্তী সদর উপজেলা, কানাইঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জকিগঞ্জ ও জৈন্তাপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। গরু-মহিষ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন ওই সব এলাকার মানুষজন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের নির্বাহী পরিচালক দিপক রঞ্জন তালুকদার বলেন, ভারতে এখনও প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছে। ফলে নদীর পানি দ্রুত বাড়ছে। সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, সিলেট নগরীতে বন্যা আশ্রয়ণ কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আশ্রিত পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় সেবা তারা পাবেন। পুরো বিষয়টি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান বলেন, কিছু কিছু উপজেলায় সরকারি স্থাপনায় পানি উঠলেও সেবা ব্যাহত হচ্ছে না। সব প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কার্যক্রম অব্যাহত আছে।