ঢাকা Friday, 12 July 2024

আনার হত্যাকাণ্ডে গ্রেপ্তার আওয়ামী লীগ নেতা মিন্টুর উত্থান যেভাবে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 16:31, 13 June 2024

আপডেট: 21:48, 13 June 2024

আনার হত্যাকাণ্ডে গ্রেপ্তার আওয়ামী লীগ নেতা মিন্টুর উত্থান যেভাবে

ভারতের কলকাতায় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেপ্তার হয়েছেন ঝিনাইদহ আওয়ামী লীগের নেতা সাইদুল করিম মিন্টু। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ঝিনাইদহ পৌরসভার সাবেক মেয়র।

গত মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেলে সাইদুল করিম মিন্টুকে আটক করে ডিবি পুলিশ। তারপর থেকে সারাদেশে মিন্টুকে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) দুপুরে গ্রেপ্তার সাইদুল করিম মিন্টুর আটদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এদিন দুপুর ২টার দিকে তাকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চান মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের ওয়ারী জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. মাহফুজুর রহমান।

অন্যদিকে আসামিপক্ষে রিমান্ড বাতিল ও জামিন চেয়ে শুনানি করেন আইনজীবীরা। শুনানি শেষে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনের আদালত মিন্টুর আটদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

কে এই মিন্টু

সাইদুল করিম মিন্টু হরিণাকুণ্ডু উপজেলার জোড়াদাহ ইউনিয়নের ভায়না গ্রামের মৃত রুহুল কুদ্দুস ও আঙ্গুরা বেগমের সন্তান। ওই গ্রামেই ১৯৬৪ সালের ২ জুন তার জন্ম। বর্তমানে ঝিনাইদহ শহরের আরাপপুর ক্যাসেল ব্রিজ সংলগ্ন ইন্দিরা সড়কের বিলাসবহুল বাড়িতে স্ত্রী আর্মিজা শিরিন আক্তার ও দুই পুত্র এবং এক পুত্রবধূকে নিয়ে বসবাস করছেন তিনি।

স্ত্রী আর্মিজা শিরিন আক্তার স্থানীয় একটি পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক। সাইদুল করিম সেই পত্রিকার সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি।

সাইদুল করিম বর্তমানে ঝিনাইদহ চেম্বার অফ কমার্স এবং দোকান মালিক সমিতির সভাপতি। পাশাপাশি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। 

রাজনীতিতে উত্থান যেভাবে

ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে থাকা সাইদুল করিমের রাজনীতি শুরু ছাত্রলীগের মাধ্যমে। রাজনীতিতে বেশ দ্রুত উন্নতি করেন তিনি। রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তারে অন্যতম হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেন ছাত্রলীগকে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সাইদুল করিম মিন্টুর বাবার আর্থিক অবস্থা অতটা ভালো ছিল না। ১৯৮১ সালে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি দুই ভাগে বিভক্ত হলে একটি গ্রুপের নেতৃত্বে ছিলেন জালাল-জাহাঙ্গীর। সেই গ্রুপেরই নেতা ছিলেন সাইদুল করিম মিন্টু। ১৯৮৫ সালের দিকে ঝিনাইদহ জেলা কমিটিতে সভাপতি হন জেলার মহেশপুর উপজেলার বাসিন্দা রবিউল ইসলাম। সাধারণ সম্পাদকের পদ পান সাইদুল করিম মিন্টু। এই কমিটির মাধ্যমেই মিন্টু রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

তবে কাঙ্ক্ষিত অবস্থান গড়তে না পেরে গত শতাব্দীর আশির দশকের গোড়ার দিকে ঢাকায় গিয়ে বাহাউদ্দিন নাছিমের সঙ্গে স্বেচ্ছাসেবক লীগের রাজনীতি শুরু করেন। পরে কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হন। 

পরবর্তীকালে আবারও ঝিনাইদহে ফিরে যান মিন্টু। ১৯৯৩-৯৪ সালে স্বেচ্ছাসেবক লীগ ঝিনাইদহ জেলা শাখার আহ্বায়ক হন তিনি। আওয়ামী লীগের কনিষ্ঠ সদস্য হিসেবে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগকে সংগঠিত করে রাজনীতিতে প্রভাবশালী হয়ে ওঠার কর্মযজ্ঞ শুরু করেন মিন্টু।

১৯৯৭ সালে সক্রিয় সাবেক ছাত্রলীগকর্মীদের নিয়ে তিনি জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেন। তাদের রাজনৈতিকভাবে পুনর্বাসন করে জেলা আওয়ামী লীগের হাত শক্তিশালী করেন মিন্টু। ফলে আওয়ামী লীগের স্থানীয় রাজনীতিতে নিজস্ব বলয় গড়ে ওঠে তার।

১৯৯৯-২০০০ সালে জেলার সব সহযোগী সংগঠনকে নিয়ে শ্রমিক লীগ গঠনে উদ্যোগী হন মিন্টু। এ সময় জেলা শ্রমিক লীগকে সক্রিয় করে তোলেন তিনি। 

২০০৫ সালে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হন মিন্টু। ২০০৯ সালে হরিণাকুণ্ডু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যান তিনি। সেখান থেকে ভোটার স্থানান্তর করে ২০১০ সালে ঝিনাইদহ পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মেয়র নির্বাচিত হন। 

পৌর মেয়র হওয়ার পর মিন্টুকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। রাজনীতিতে যেমন তার প্রভাব-প্রতিপত্তি বেড়ে যায়, সেই সঙ্গে সমান তালে বাড়তে থাকে সম্পত্তি। দ্রুত কয়েকশ কোটি টাকার মালিক বনে যান মিন্টু। 

এর মধ্যে সদর উপজেলার পাগলাকানাই ইউনিয়ন ও সুরাট ইউনিয়নের সঙ্গে পৌরসভার সীমানা জটিলতা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা করে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। ফলে প্রায় ১১ বছর পৌরসভার নির্বাচন বন্ধ থাকে। সেই সুবাদে টানা এক যুগ অপ্রতিদ্বন্দ্বী পৌর মেয়র থেকে যান সাইদুল করিম মিন্টু। 

বিনা ভোটে দীর্ঘদিন মেয়র থাকাকালে মিন্টু বিভিন্ন সালিশ বৈঠকের বিচার, পৌরসভার নানা প্রকল্প, শহরের হাটের দোকান বেচাকেনা ইত্যাদি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। সেই সঙ্গে শুরু করেন ঠিকাদারি ব্যবসা। জমি দখলের অভিযোগও রয়েছে। 

এছাড়া শহরের ট-বাজার সংলগ্ন জেলা বিএনপির সাবেক কার্যালয়ের জায়গা কিনে সেখানে গড়ে তোলেন ছয়তলা বিশিষ্ট মার্কেট। সেটি পরে বিক্রি করে দিয়েছেন বলে শোনা যায়। পৌর এলাকার মহিষাকুণ্ডুতে রয়েছে তার বাগানবাড়ি। অবশ্য সেখানে কিছু বসার জায়গা এবং একটি টিনশেড ছোট ঘর ছাড়া কিছু নেই। সেখান প্রায় এক বছর হলো যান না সাইদুল করিম মিন্টু। বর্তমানে ঠিকাদারির পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করেন তিনি।

২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি সফিকুল ইসলাম অপু ঝিনাইদহ-২ আসন থেকে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পান। কিন্তু নিজের পছন্দের প্রার্থী না হওয়ায় সাইদুল করিম মিন্টু তৎকালীন জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেন। পরে অবশ্য সেই বিরোধ মিটিয়ে নেন তিনি।

২০১৪ সালের মার্চের দিকে ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের ইজারা সংক্রান্ত প্রায় ৭০ লাখ টাকার দ্বন্দ্বে খুন হন তৎকালীন জেলা বাস, মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গফফার বিশ্বাস। সেটা মীমাংসার চেষ্টা করা হয়েছিল, কিন্তু সকালে চাকলাপাড়া এলাকার ব্রিজের পাশে তার রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। এই হত্যাকাণ্ডে সাইদুল করিম মিন্টুর সংশ্লিষ্টতা ছিল বলে অভিযোগ রয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডকে ঘিরে সেই সময় শহরের বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক বিক্ষোভ ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

২০১৫ সালের ২৫ মার্চ জাতীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন মিন্টু। এরপর থেকে সে পদেই রয়ে গেছেন তিনি। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বর্তমানে মিন্টুর বিরুদ্ধে দুটি মামলার বিচার চলমান। এর মধ্যে একটি পৌরসভার মেয়র থাকাকালীন মশক নিধন, গাড়ি মেরামত, রাস্তা পরিষ্কারসহ অন্যান্য প্রকল্পের বিলের চেকে মূল টাকার সঙ্গে অতিরিক্ত সংখ্যা বসিয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের মামলা। জালিয়াতি করে ৩৮টি চেকের মাধ্যমে প্রায় ৭৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০২৩ সালের ২২ জানুয়ারি মামলাটি করে ঝিনাইদহ দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়। মামলায় সাইদুল করিম মিন্টুসহ চারজনকে আসামি করা হয়েছে। সেই মামলাটি বর্তমানে তদন্তাধীন। এছাড়া সদর থানায় ২০১৫ সালের ১ জুলাই ৩০২ ধারায় করা একটি হত্যামামলা আদালতে বিচারাধীন আছে।

গত সংসদ নির্বাচনের আগে কালীগঞ্জের বিভিন্ন মিছিল-মিটিংয়ে এমপি আনোয়ারুল আজীম আনারের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন সাইদুল করিম মিন্টু। আনারের বিরুদ্ধে একাধিকবার বক্তব্যও দিয়েছেন তিনি।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন মিন্টু নিজেও। তবে শেষ পর্যন্ত ঝিনাইদহ-২ আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। কিন্তু দলীয় মনোনয়ন পাননি। ফলে নির্বাচনে অনেকটা নীরব ছিলেন। 

গত পৌর, জেলা পরিষদ, সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান ছিল মিন্টুর। এসব নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা পরাজিত হন। সেসময় সরাসরি মিছিল-মিটিংয়ে উপস্থিত থাকতেন না মিন্টু। তবে তিনি বিরোধী পক্ষে অবস্থানের কারণে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়। কিছু বিভক্তিও দেখা দেয়। বিশেষ করে গত সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বেশ ক্ষিপ্ত হন মিন্টু। সেসময় ঝিনাইদহ-২ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নেন এবং ঝিনাইদহ-৪ আসনের প্রার্থী আনারের বিপক্ষে গোপনে কাজ করেন। 

নির্বাচনে ঝিনাইদহ-২ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়। তবে নির্বাচনের পর আনারের বিরুদ্ধে কথা বলা থেকে বিরত থাকেন মিন্টু। 

এছাড়া সংসদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও ঝিনাইদহ-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল হাইয়ের বিপক্ষে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিশ্বাস বিল্ডার্সের স্বত্বাধিকারী নজরুল ইসলাম দুলালের পক্ষে অবস্থান নিয়ে মিছিল-মিটিংয়ে অংশ নেন মিন্টু।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, পৌরসভার প্রকল্প, দোকানপাট ইজারা, বিভিন্ন সালিশ বৈঠকের নামে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছেন মিন্টু। ঝিনাইদহ শহরের ক্যাসল ব্রিজ-সংলগ্ন এলাকায় তার রয়েছে বিলাসবহুল বাড়ি। তার বিরুদ্ধে রয়েছে জমি দখলের অভিযোগ। এছাড়া শহরে জেলা বিএনপির আগের অফিসের জায়গা কিনে সেখানে গড়ে তোলেন ছয়তলা মার্কেট। পৌর এলাকার মহিষাকুণ্ডুতে রয়েছে তার বাগানবাড়ি। সদরের নারিকেলবাড়িয়া এলাকায়ও তার রয়েছে অনেক সম্পদ। এছাড়া দেশের বাইরেও তার ব্যবসা রয়েছে বলে এলাকায় চাউর আছে। বর্তমানে মিন্টু পরিবহন ও ঠিকাদারিসহ নানা ধরনের ব্যবসা করছেন। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতা বলেন, সাইদুল করিম মিন্টুর কাজই হচ্ছে বিরোধিতা করা। জেলা আওয়ামী লীগ যাকে সমর্থন করে তিনি তার বিপক্ষে যান। সংসদ নির্বাচনে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার এবং ঝিনাইদহ-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল হাইয়ের বিপক্ষে কাজ করেছেন। এটা নিজের স্বার্থসিদ্ধি ও প্রতিহিংসাপরায়ণতার কারণেই করে থাকেন তিনি। মিন্টু সবসময় দলের মধ্যে ভাঙন সৃষ্টিতে ব্যস্ত থাকেন, সভা-সমাবেশে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে অশালীন বক্তব্য দেন। এতে অনেকেই তার ওপর ক্ষুব্ধ।

তিনি আরো জানান, কৌশলে সব সময় সংগঠনের ভেতরে ‘দ্বন্দ্ব’ তৈরি করে রাখেন মিন্টু। তার বিরুদ্ধে কমিটি বাণিজ্যের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আজীমের বিপক্ষেও কাজ করেছিলেন। এমপি পদে মনোনয়ন ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে আজীমের সঙ্গে দ্বন্দ্ব ছিল মিন্টুর। সর্বশেষ সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক হতে চেয়েছিলেন আজীম, কনক কান্তি দাস এবং মিন্টু। পরে ভোটাভুটি ছাড়াই মিন্টুকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। জেলা সম্মেলনের কয়েক মাস পর হঠাৎ কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ১০ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করেন মিন্টু। কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতা ছিলেন মিন্টুর অনুসারী। এ নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়।