ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

লক্ষ্মীপুরে সৎছেলেকে হত্যার দায়ে সৎমায়ের সাজা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: 18:43, 25 September 2023

লক্ষ্মীপুরে সৎছেলেকে হত্যার দায়ে সৎমায়ের সাজা

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে তিন বছরের শিশু আহমেদকে হত্যার দায়ে তার সৎমা কহিনুর বেগমকে (২৬) ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রহিবুল ইসলাম এ রায় দেন।

অভিযুক্ত কহিনুর রামগঞ্জ উপজেলার দরবেশপুর ইউনিয়নের উত্তর দরবেশপুর গ্রামের মোবারক হোসেন কুট্টির মেয়ে। মামলাটির বাদী নিহতের বাবা মিরণ চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার হাবিব মিয়ার ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মিরন ঢাকায় একটি প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে চাকরি করেন। প্রথম স্ত্রী শারমিন আক্তারের সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয়। আহমেদ তার প্রথম সংসারের ছেলে। কিছুদিন পর মিরন রামগঞ্জের কহিনুরকে বিয়ে করেন। আহমেদসহ দ্বিতীয় স্ত্রীকে তিনি নিজ এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় রেখেছিলেন। 

ঘটনার দিন তিনি ঢাকায় কর্মস্থলে ছিলেন। এসময় আহমেদকে নিয়ে কহিনুর রামগঞ্জের দরবেশপুরে তার বাবার বাড়িতে যান। পরে কহিনুর তার স্বামীর ভাড়া বাসায় ফিরে মিরনকে জানান, আহমেদকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। 

খবর পেয়ে মিরন ঢাকা থেকে গিয়ে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও ছেলেকে পাননি। পরে পুলিশকে জানালে তারা কহিনুরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। 

তখন কহিনুর পুলিশকে জানান, ২৬ আগস্ট রাত ২টার দিকে পেটে লাথি দিলে আহমেদ মারা যায়। পরে দা দিয়ে খাটের নিচে গর্ত খুঁজে তার মরদেহ মাটিতে পুঁতে রাখা হয়। 

তার দেয়া তথ্যমতে, বিকেলে দরবেশপুর এসে কহিনুরের বাবার বাড়ির শয়নকক্ষের খাটের নিচে পুঁতে রাখা আহমেদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। একই দিন মিরন বাদী হয়ে কহিনুরের বিরুদ্ধে মামলা করেন। 

এ বিষয়ে পিপি জসিম উদ্দিন বলেন, কহিনুর বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে তিন বছরের আহমেদকে লাথি মেরে হত্যার পর শয়নকক্ষের খাটের নিচে পুঁতে রাখেন। আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাকে দশ বছরের কারাদণ্ড ও দশ হাজার টাকা জরিমানা করেন।