ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

দাফনের ২৮ বছর পর অক্ষত অবস্থায় মিলল মরদেহ 

মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 12:16, 19 September 2023

দাফনের ২৮ বছর পর অক্ষত অবস্থায় মিলল মরদেহ 

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় প্রায় ২৮ বছর আগে দাফন করা একটি লাশ অক্ষত অবস্থায় দেখতে পেয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে লাশটি এক নজর দেখার জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে ভিড় জমায় উৎসুক জনতা।

সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরের দিকে উপজেলার ছেংগারচর পৌরসভার ডেঙ্গুর ভিটি গ্রামের খান বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মৃত বৃদ্ধার নাম সাহেব আলী খাঁন। ১৯৯৬ সালে ১৬ই ডিসেম্বর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭৫ বছর বয়সে মারা যান তিনি। পরে তাকে ডেঙ্গুরভিটি গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছিল।

মোঃ সাহেব আলী খানের ছেলে মো. মোবারক হোসেন খান বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন ধরে ইটালিতে বসবাস করছি। আমাদের গ্রাম থেকে ফোনে আমাকে জানানো হয়েছে আমার বাবার কবরের উপর দিয়ে রাস্তা যাচ্ছে। আমি কয়েক বার স্বপ্নেও দেখেছি বাবা বলছেন আমার কবরের উপর দিয়ে রাস্তা যাচ্ছে, তুমি আমার কবরটা এখান থেকে অন্য যায়গায় স্থানান্তর করো। তখন আমি আমার চাচা এবং গ্রামের লোকজনকে বলেছি আমি দেশে এলে আমার বাবার কবরটা এখান থেকে স্থানান্তর করব। রোববার আমি ইটালি থেকে দেশে এসে সোমবার হুজুরদের সঙ্গে কথা বলে ধর্মীয় নিয়ম মেনে আত্মীয়স্বজন ও এলাকার লোকজন নিয়ে সকাল ১১টার দিকে প্রতিবেশীদের নিয়ে কবরের কাছে যাই। কবর খুঁড়তেই সাদা কাপড় দেখতে পাই আমরা। একপর্যায়ে অক্ষত মরদেহ দেখে ওই জায়গা থেকে উত্তোলন করে আমার মায়ের কবরের পাশে দাফন করি। ২৮ বছর পরও বাবার মরদেহ অক্ষত দেখে সবাই  হতভম্ব হন।’ লাশ তুলে অক্ষত বাবার লাশ দেখে আবেগে অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়েন ছেলে। 

মোঃ মোবারক হোসেন খান আরো বলেন, ‘আমার বাবা সাধারণ মুসল্লি ছিলেন। অনেক পরহেজগার ছিলেন তিনি। মরদেহ কবর থেকে তোলার পর দেখি কাফনের কাপড়ও পচেনি। ধরে দেখি কাপড়ের ভেতরে শুকনো দেহ রয়েছে। প্রতিটি হাড়ের জোড়া শক্ত। হাত-পায়ের জোড়া বিচ্ছিন্ন হয়নি।’ 

প্রবীণ স্থানীয়রা বলছেন, মৃত ব্যক্তি অত্যন্ত ভালো মানুষ ছিলেন। লোভ-লালশাহীণ অতি সৎ ও সরল জীবনযাপন করে গেছেন। তাই আল্লাহ পাক তাকে শান্তির ঘুমে রেখেছেন। 

এদিকে ২৮ বছরে মরদেহ কবরে অক্ষত থাকার খবর শুনে ওই বাড়িতে ভিড় জমায় এলাকাবাসী। শুধু এলাকাবাসী নয়, দূর-দূরান্ত থেকেও অনেকে দেখতে আসে মরদেহ।

এ বিষয়ে ডেঙ্গুরভিটি গ্রামের আব্দুল গনি খান বলেন,  মোঃ সাহেব আলী খানের মরদেহ অলৌকিকভাবে ২৮ বছর পর অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। ধর্মীয় রীতি মেনে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে পুনরায় দাফন করা হয়েছে।

ছেংগারচর বাজার আন-নুর ইসলামিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম হাফেজ কারি মাওলানা মাইনুদ্দিন খান বলেন, আল্লাহ নানাভাবে তাঁর কুদরতের নিদর্শন দেখান। হয়তো এটি আল্লাহর একটি নিদর্শন। এমনও হতে পারে মোঃ সাহেব আলী খান আল্লাহর গ্রহণযোগ্য বান্দা ছিলেন। তাই অলৌকিকভাবে মরদেহ অক্ষত রয়েছে। এ ধরনের মরদেহের গোসল ও জানাজা দেওয়ার প্রয়োজন নেই। ইসলামী শরিয়াহ অনুযায়ী স্থানান্তর করে দাফন করে দিলেই হয়।

স্থানীয় কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন জানান, আমাদের নতুন সড়ক নির্মাণের সময় কবরের বিষয়টি জানালে বৃদ্ধার প্রবাসী ছেলে আপত্তি করেন। গতকাল তার ছেলে দেশে আসেন। আজ লাশটি তুললে আমরা অক্ষত অবস্থায় পাই এবং লাশটি অন্যত্র দাফন করা হয়েছে।