ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত : ছাত্রলীগ নেতাকে নিয়ে দুরকম কথা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৯:১০, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ১৯:১০, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত : ছাত্রলীগ নেতাকে নিয়ে দুরকম কথা

মো. মনোয়ার হোসেন

লক্ষ্মীপুর সদরে দশম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত করার জের ধরে বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে লাহারকান্দি ইউনিয়নের চাঁদখালী বাজারে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে লাহারকান্দি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. মনোয়ার হোসেন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানা গেছে। 

অভিযোগ উঠেছে, মনোয়ার হোসেন ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করতেন। এ বিষয়ে বুধবার রাতে লাহারকান্দি ইউনিয়নের চাঁদখালী বাজারে তাকে সতর্ক করতে যান ওই ছাত্রীর মামা বিজয়, হৃদয়, রিফাত এবং চাচাতো ভাই জিয়ন। কিন্তু এ নিয়ে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে আহত অবস্থায় মনোয়ারকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

এদিকে রাতেই মনোয়ারকে হাসপাতালে দেখতে যান জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন ভূঁইয়াসহ ছাত্রলীগের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। ওই ঘটনার পর থেকে আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা অভিযোগ করছেন, মনোয়ারের ওপর বিএনপি-জামায়াতের লোকজন হামলা চালিয়েছে। তারা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান।

তবে ওই ছাত্রীর বাবা জানান, দীর্ঘদিন ধরে তার মেয়েকে স্কুল আসা-যাওয়ার পথে ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। তিনি বিভিন্ন সময় ওই ছাত্রীকে কুপ্রস্তাব এবং নানা হুমকি-ধমক দিতেন। এসবে ভয় পেয়ে প্রথমে মেয়েটি কাউকে কিছু জানায়নি। 

এদিকে মনোয়ার ওই স্কুলছাত্রীর এক সহপাঠীর মাধ্যমে তাকে চিরকুট দেয়। তখন বিষয়টি পরিবারে সবাইকে জানায় ভুক্তভোগী মেয়েটি। 
এরপর বুধবার রাতে ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ারকে ওই বিষয়ে জিজ্ঞাসা ও সতর্ক করেন স্কুলছাত্রীর মামা ও চাচাতো ভাই। সে সময় তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে মনোয়ার ও তার লোকজন বিজয়, হৃদয়, রিফাত ও জিয়নকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। 

মেয়েটির বাবা অভিযোগ করেন, এখন উল্টো মনোয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়ে পুলিশ দিয়ে আমাদের হয়রানি করছে। আমি এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দেব।

এদিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার হোসেন জানান, অন্যায়ভাবে শিবির নেতা বিজয়, রিফাত, হৃদয় ও স্থানীয় ইউপি সদস্য জাবেদ হোসেন মামুনের বড় ছেলে জিয়ন আমাকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। আমার সঙ্গে তাদের কোনো দ্বন্দ্ব ছিল না। তারা এখন ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে নারী সংক্রান্ত ঘটনা রটিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ ছড়াচ্ছে।

এ বিষয়ে লাহারকান্দি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, বুধবার বিকেলে নারীঘটিত ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে স্কুলছাত্রীটি মনোয়ারের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দেয়নি। সেখানে অভিযোগ করা হয়েছে আকরাম নামে এক ছেলের বিরুদ্ধে। জামায়াত-বিএনপির অনুসারীরা সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে মনোয়ারকে মারধর করেছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন ভূঁইয়া বলেন, বিষয়টি দুইভাবে শোনা যাচ্ছে। আমরা সাংগঠনিকভাবে পুরো ঘটনা তদন্ত করে রহস্য উদঘাটন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। যদি মনোয়ারের ওপর জামায়াত-বিএনপির সন্ত্রাসীরা রাজনৈতিক কারণে হামলা করে। আমরা অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নিতে মনোয়ার ও তার পরিবারকে সহায়তা করবো। আর যদি নারী সংক্রান্ত ঘটনা হয়, আমরা মনোয়ারের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।

তবে লাহারকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য মো. জাবেদ হোসেন মামুন বলেন, বিএনপি-জামায়াত নিয়ে কোনো রকম মারামারি হয়নি। একটি মেয়েকে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে ইভটিজিং করতেন ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার। ওই ছাত্রীর মামা ও চাচাতো ভাই বিষয়টি জানতে চাইলে মনোয়ার তাদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। 

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ওসি মো. মোস্তফা কামাল বলেন, মারামারির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ছাত্রলীগের সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে মনোয়ার হোসেনকে ২০২১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি লাহারকান্দি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের পদ থেকে অব্যাহিত দেয়া হয়। পরবর্তীকালে চলতি বছর ৭ জুন সদর উপজেলা ছাত্রলীগ মনোয়ার হোসেনের অব্যাহতি প্রত্যাহার করে নেয়।