ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বাসে ডাকাতি-ধর্ষণে জড়িত সবাই চিহ্নিত, আরও দুজন গ্রেপ্তার

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১২:৫৮, ৫ আগস্ট ২০২২

আপডেট: ১৩:৪৭, ৫ আগস্ট ২০২২

বাসে ডাকাতি-ধর্ষণে জড়িত সবাই চিহ্নিত, আরও দুজন গ্রেপ্তার

কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের মধ্যে আরও দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত সকলকেই চিহ্নিত করা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্র নিশ্চিত করেছে। এদের মধ্যে তিন থেকে চারজন টাঙ্গাইল জেলার বাসিন্দা, বাকিরা বিভিন্ন জেলার। তবে তারা বসবাস করতেন গাজীপুর, চন্দ্রা ও সাভার এলাকায়।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) ভোরে চক্রের অন্যতম সদস্য রাজা মিয়াকে গ্রেপ্তারের পর দিবাগত গভীর রাতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর বাসস্ট্যান্ড এবং সোহাগ পল্লী থেকে পরবর্তীতে অপর দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বেলা ১২টায় তার কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার কা নপুর গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে মো. আউয়াল (৩০), একই উপজেলার শিলাবহ পশ্চিমপাড়া গ্রামের বাহেজের ছেলে নুরনবী (২৬)। গ্রেফতারকৃতদের সবাই মাদকাসক্ত।

সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাজা মিয়া ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবার নাম ও পরিচয় প্রকাশ করেছেন। রাজা মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এরপর থেকেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। তাকে জিজ্ঞাসাবাদে এই চক্র এর আগে কোথাও এ ধরনের অপরাধ করেছে কি-না সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। এছাড়াও তার কাছ থেকে বাস ডাকাত চক্রের সম্পর্কে তথ্য নেওয়া হচ্ছে। ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে একাধিক টিম কাজ করছে।

জানা গেছে, রাজা মিয়া টাঙ্গাইল-চন্দ্রা সড়কে বাস চালাতেন ও শহরের দেওলা এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন। এর আগে তার নামে কোনো মামলা না থাকলেও জুয়া খেলার অভ্যাস ছিল।

 উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার রাতে ঈগল এক্সপ্রেসের একটি বাস কুষ্টিয়ার ৩০-৩৫ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকার দিকে যাচ্ছিলেন। পথে যাত্রীবেশে ডাকাত দল উঠে প্রথমে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ নেয়। পরে যাত্রীদের হাত-পা ও চোখ বেঁধে মারধর এবং লুটের পর এক নারীকে দলবেঁধে ধর্ষণ করে। ডাকাত দল বাসটি ঘুরিয়ে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের মধুপুর উপজেলার রক্তিপাড়া জামে মসজিদের সামনে ফেলে রেখে নেমে যায়।

ধর্ষণের শিকার নারীর ডাক্তারি পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত মিলেছে। টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে বৃহস্পতিবার দুপুরে তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। এরপর তাকে আদালতে পাঠানো হয়। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন ভুক্তভোগী ওই নারী। ওই বাসের যাত্রী হেকমত মিয়া বাদী হয়ে মধুপুর থানায় বাস ডাকাতি ও ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন।