ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতার মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২০:০৪, ৪ জুলাই ২০২২

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতার মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক ইউনুছ হাওলাদার রূপমের করা মামলায় একই উপজেলার চর রমণী মোহন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ছৈয়ালকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

সোমবার (৪ জুলাই) দুপুরে লক্ষ্মীপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শামছুল আরেফিন চেয়ারম্যানকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। 

বাদীপক্ষের আইনজীবী রাসেল মাহমুদ ভূঁইয়া মান্না সাংবাদিকদের জানান, ইউনুছ হাওলাদার রূপম চেয়ারম্যান ইউছুফ ছৈয়ালের কাছ থেকে ৩২ লাখ টাকা পান। এ নিয়ে কয়েকবার বৈঠকে বসলেও তিনি টাকা ফেরত দেননি। পরে এ ঘটনায় আদালতে মামলা করা হয়। সোমবার আদালতে চেয়ারম্যানের হাজিরা ছিল। বাদীর টাকা না দেয়ায় আদালত চেয়ারম্যানকে গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালে রূপম হাওলাদার মেঘনা নদীর মজুচৌধুরীরহাট লঞ্চঘাট ইজারার জন্য ২৫ লাখ টাকার পে-অর্ডার নেন। ঘাটটি চেয়ারম্যান ইউছুফ ছৈয়ালের চর রমণী মোহন ইউনিয়নে। এতে তিনি রূপমের সঙ্গে অংশীদার হয়ে কাজ করবেন ও তার নামেই ঘাট ইজারা নেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। রূপম তাতে রাজি হন। রূপম তখন ২৫ লাখ টাকার পে-অর্ডার ও আরো ১০ লাখ টাকা দেন। এতে রূপম ও ইউছুফ ছৈয়াল চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় থেকে টেন্ডারের মাধ্যমে ঘাটটি ইজারা পান। কিন্তু কাগজপত্রে ইউছুফ ছৈয়ালের পরিবর্তে তার ভাতিজা বাবুল ছৈয়ালের নাম দেখা যায়।

এর কারণ জানতে চাইলে রূপমকে চেয়ারম্যান জানান, চেয়ারম্যান হওয়ার কারণে নিজ নামে তিনি ইজারা নিতে পারবেন না। এর কিছুদিন পরে রূপমের অংশীদারিত্বের কথা তিনি অস্বীকার করেন। টাকা চাইলেও দেবেন না বলে জানান। এতে বাধ্য হয়ে রূপম লক্ষ্মীপুর আদালতে ইউছুফ ছৈয়ালের বিরুদ্ধে ৩৩ লাখ টাকা পাওনা উল্লেখ করে মামলা করেন। 

এদিকে ঘটনাটি মীমাংসার জন্য একাধিকবার ইউছুফ ও রূপম সদর মডেল থানায় লোকজন নিয়ে বৈঠকে বসেন। এসব বৈঠকে বারবারই টাকা ফেরত দেবেন বলে জানান ইউছুফ। সর্বশেষ গত ইউপি নির্বাচনের আগ মুহূর্তে আদালতে মামলাটির হাজিরা ছিল। তখন বৈঠকের মাধ্যমে তিনি ঘটনাটি মীমাংসার কথা বললে জামিন পান। কিন্তু এরপরও তিনি টাকা ফেরত দেননি। পরবর্তীকালে আদালতে রূপম ৩২ লাখ টাকা পাওনা বলে প্রমাণিত হয়। ওই টাকা না দেয়ায় আদালত ইউছুফকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন।