ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত মতলবের সটাকী বাজারের কারিগররা

মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৯:৪৮, ৪ জুলাই ২০২২

নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত মতলবের সটাকী বাজারের কারিগররা

চলতি বর্ষা মৌসুমে নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার সটাকী বাজারের নৌকার কারিগর ও কাঠ ব্যবসায়ীরা। নতুন নৌকা তৈরির পাশাপাশি অনেকেই পুরনো নৌকা মেরামতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

সটাকী বাজারের ব্যবসায়ী দুলাল প্রধান (৫৫) বলেন, আমি দীর্ঘ ৩৮ বছর ধরে কাঠের ব্যবসা ও নৌকা তৈরিতে জড়িত। আমি সটাকী বাজারে নৌকা বানাই এবং বিক্রি করি। এছাড়া আমি বিভিন্ন হাটে বিক্রির উদ্দেশ্যে কমদামি খাট, চৌকি, দরজা, জানালা তৈরি এবং পাইকারি কাঠ বিক্রি করি। বর্ষা এলে নৌকা বানাই। এ সময় আমার কারিগররা দম ফেলার সময় পায় না। আমার একজন কারিগর দিনে একটা নৌকা বানায়। সারা সপ্তাহে যা নৌকা বানানো হয় খুচরা দুই-একটা বিক্রি ছাড়া সব নৌকা বিক্রি হয়ে যায় সাপ্তাহিক হাটের দিন শনিবার ও মঙ্গলবার। এ হাটে ১০-১২টি নৌকা বিক্রি করতে পারি। পানি বাড়লে বিক্রি বাড়বে। মতলবের বেড়িবাঁধের বাইরে যেসব অঞ্চল রয়েছে এসব এলাকা এবং পাশের জেলা মুন্সীগঞ্জের লোকজনও এখান থেকে  নৌকা কিনতে আসেন। 

জানা গেছে, ৮ থেকে ১০ হাত দৈর্ঘ্যর নৌকা চার-পাঁচ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নৌকা বড় হলে দামও বাড়ে।

একই বাজারের নৌকা তৈরির কারিগর চাঁন মিয়া বলেন, আমি বরিশাল থেকে বিভিন্ন জাতের কাঠ এনে বাজারে পাইকারি ও খুচরা বিক্রি করি। তবে বছরে দুই মাস নৌকা বানাই। বর্ষাকালে ঘরের কাজ একটু কম থাকে। এ সময়টাতে কাঠ একটু কম বেচা হয়। তাই বিকল্প হিসেবে নৌকা বানাই। রোজ হিসাব করলে অন্য সময়ের চেয়ে ২০০ থেকে ৪০০ টাকা বেশি পাই। একটি নৌকা বানাতে পারলে পাই ৮০০ টাকা। দৈনিক দুজনে তিনটি নৌকা তৈরি করতে পারি। ৯ হাত থেকে ১৪ হাত পর্যন্ত দাম ৩ হাজার ৫০০ থেকে ১২ হাজার টাকা পর্যন্ত। প্রতি নৌকায় ১০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত লাভ হয়। 

পাশের দোকানের নৌকা তৈরির কারিগর বিল্লাল (৪৫) বলেন, বর্ষা মৌসুমের এই দুই-তিন মাস আমরা প্রতিদিন গড়ে হাজার টাকা আয় করতে পারি। কাজেও ঝুঁকি কম।

সটাকী বাজার কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান মোল্লা বলেন, বর্ষা মৌসুমে নৌকার চাহিদা বাড়ে। নিচু এলাকার মানুষের বর্ষায় যাতায়াতের একমাত্র ভরসা নৌকা। অনেকে পুরনো নৌকা মেরামত করাচ্ছেন। আমাদের সটাকী বাজারের আশপাশের জেলাগুলো থেকে অনেকে বর্ষায় নৌকা কিনতে আসে। তারা এখানে অন্যান্য নৌকার হাট থেকে এখানে সুলভ মূল্যে রেডিমেড নৌকা কিনতে পারে বিধায় এখানে জমজমাট নৌকার হাট। তবে শনিবার ও মঙ্গলবার সবচেয়ে বেশি জমে ওঠে নৌকা বেচা-বিক্রি। 

উপজেলার মেঘনা-ধনাগোদা বেড়িবাঁধের বাইরে শিকিরচর, সুগন্ধি, সটাকী, দশানী, মোহনপুরম এখলাছপুর, সানকিভাঙ্গা, চরকাশিম, বোরচর, চর উমেদ, বাহেরচরসহ মেঘনা-পদ্মার তীরবর্তী গজারিয়া, কালিচর, মুন্সীগঞ্জে এখানকার নৌকা ব্যবহার হয়ে থাকে।