ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

টুংটাং শব্দে মুখরিত ছেংগারচর বাজারসহ কামারপট্টি 

মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৯:১০, ৪ জুলাই ২০২২

টুংটাং শব্দে মুখরিত ছেংগারচর বাজারসহ কামারপট্টি 

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে মতলব উত্তর উপজেলার কামারপট্টিতে কর্মব্যস্ততা বেড়েছে। কোরবানির পশু জবাই ও মাংস প্রস্তুতের জন্য এখন চলছে চাপাতি, দা, বঁটি, ছুরিসহ নানা হাতিয়ার তৈরির কাজ। 

কোরবানির ঈদের জন্য পশু জবাই করা, চামড়া ছাড়ানো, মাংস ও হাড় কাটার জন্য নানা ধরনের লৌহজাত সামগ্রী তৈরি হচ্ছে কামারশালাগুলোয়। ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে, তাদের কর্মব্যস্ততাও বাড়ছে। 

সরেজমিনে ঘুরে দেখে গেছে, উপজেলার ছেংগারচর বাজারের কামারপট্টিতে ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কামাররা ব্যস্ত সময় পার করছেন। সারাবছর হাতে খুব একটা কাজ না থাকলেও কোরবানির ঈদকে ঘিরে বেড়ে যায় তাদের কর্মব্যস্ততা। কামাররা বলছেন, আগামী কয়েকদিন এই কর্মব্যস্ততা থাকবে। 

ক্রেতারা বলছেন, অন্য বছরের তুলনায় এবার ছুরি-চাপাতি এবং দা-বঁটির দাম বেশি চাইছেন বিক্রেতারা। এ বিষয়ে বিক্রেতাদের দাবি, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, লোহা ও কয়লার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এসব হাতিয়ার তৈরি করতে খরচ বেশি হচ্ছে। 

ছেংগারচর বাজারের কামারপট্টির বিপ্লব কর্মকার বলেন, গত বছর থেকে এ বছর কয়লা, লোহা, শান দেয়ার পাথরসহ সব কাঁচামালের দাম বেড়েছে। তবে পারিশ্রমিকের বা মজুরির কোনো পরিবর্তন ঘটেনি। কাঁচামালের দাম বাড়লেও তৈরি পণ্য সেই অনুপাতে দাম বাড়িয়ে বিক্রি করা যাচ্ছে না। সারাবছর কমবেশি আমাদের কাজ ছিল, এখনো তার চেয়ে একটু বেশি কাজ করতে হচ্ছে। এক কথায় কোরবানির এ সময়টায় কামারপট্টির পুরনো সেই জৌলুস ফিরে এসেছে।

বিষু কর্মকার নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, বহু বছর ধরে এ পেশায়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সবকিছুর দাম বেড়েছে, মানও বেড়েছে। এখন বাজারে একটি বড় দা ওজন ও আকার ভেদে ৩২০ থেকে ৪৫০ টাকা, চাপাতি প্রকারভেদে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, বিভিন্ন আকারের ছোরা ১৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  

উপজেলার ছেংগারচর বাজারে দা-ছোরা কিনতে আসা দেলোয়ার বলেন, কোরবানি ঈদে পশু জবাই ও মাংস কাটার জন্য একটা দা ৩২০ টাকা ও একটা ছোরা ১৩০ টাকা দিয়ে কিনলাম। 

আরেক ক্রেতা পৌরসভার ঠাকুরচর গ্রামের ব্যবসায়ী লোকমান হোসেন বলেন, ঈদে নামাজ শেষে আমরা নিজেরাই পশু জবাই করি। তাই পশু জবাইয়ের সামগ্রী কিনতে এসেছি। তবে গত বছরের চেয়ে এবার দাম অনেক বেশি চাইছেন দোকানদাররা।