ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

পঞ্চগড়ে প্রাথমিকের উপবৃত্তির টাকা তুলতে পিনকোডসহ নানা ভোগান্তি 

পঞ্চগড় প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৭:১৫, ২১ জুন ২০২২

পঞ্চগড়ে প্রাথমিকের উপবৃত্তির টাকা তুলতে পিনকোডসহ নানা ভোগান্তি 

সারাদেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদান করছে সরকার। কিন্তু উপবৃত্তির টাকা তুলতে পদে পদে হয়রানির শিকার হচ্ছেন অভিভাবকরা। এতে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। 

অভিভাবকরা জানান, বারবার অপারেটর এবং পিনকোড পরিবর্তন করার জন্যই এই ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। 

জানা গেছে, অর্থ আদান-প্রদান প্রতিষ্ঠান নগদের মাধ্যমে পঞ্চমবারের মতো এবারো উপবৃত্তির অর্থ দেয়া শুরু হয়েছে। এর আগে রূপালী ব্যাংকের শিওর ক্যাশের মাধ্যমে প্রদান করা হতো। কিন্তু অপারেটর পরিবর্তন করার সঙ্গে সঙ্গে নগদ অ্যাকাউন্টের পিনকোডও পরিবর্তন করতে হচ্ছে। 

এই পিনকোড পরিবর্তন করার জন্য জেলার পাঁচ উপজেলার লক্ষাধিক অভিভাবককে পঞ্চগড় জেলা শহরের পোস্ট অফিসে গিয়ে পিনকোড পরিবর্তন করতে হচ্ছে। এতে জেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে অভিভাবকদের যাতায়াত ভাড়াসহ প্রায় ১ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। 

অন্যদিকে নগদের মাত্র একজন কর্মচারী এই পিনকোড পরিবর্তনের কাজে নিয়োজিত। ফলে পিনকোড পরিবর্তনে সময় লাগছে বেশি। এতে অনেক অভিভাবককে পিনকোড পরিবর্তন না করেই বাড়ি ফিরতে হচ্ছে। 

এবার ড্রেসকোড, ব্যাগ কেনার জন্য সরকার ১ হাজার টাকা করে অনুদান দিচ্ছে। জেলার ৬৮৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৯৬ হাজার ৫৮১ জন শিক্ষার্থীকে এই উপবৃত্তি দেয়া হবে। 

স্কুলশিক্ষকরা বলছেন, অনেক অভিভাবক এখনো বিষয়টি জানেন না। অনেকে পিনকোড পরিবর্তনের বিষয়টি বোঝেন না। তারা স্কুলে এসে ভিড় করছেন। অনেকের পিনকোড অন্যজন ব্যবহার করে টাকা তুলে নিচ্ছে - এমন অভিযোগও আছে। 
এদিকে উপবৃত্তি কার্যক্রম নিয়ে শিক্ষকদের ব্যস্ততার কারণে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান। তেঁতুলিয়া উপজেলার বুড়িমুটকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফেরদৌস আহমেদ লিটন জানান, সারাদিন উপবৃত্তির এই সংকট সমাধানে কাজ করতে হয়। পাঠদান হচ্ছে না। শিশুদের বিশাল ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে। অভিভাবকদের পঞ্চগড় গিয়ে পিনকোড পরিবর্তন করতে হচ্ছে। এতে উপবৃত্তির পুরো টাকাই যাতায়াতে খরচ হয়ে যাচ্ছে। 

সদর উপজেলার ভিতরগড় এলাকার অভিভাবক বজলুর রহমান একজন শ্রমিক। তিনি বলেন, কাজকাম বাদ দিয়ে পিনকোড পরিবর্তনের জন্য এসেছি। কিন্তু আজকে হচ্ছে না। আমার দুদিনের আয় ১ হাজার টাকা। এই টাকা যদি পিনকোড পরিবর্তনে চলে যায়, তাহলে উপবৃত্তির টাকা নিয়ে কি হবে?  
 
এ বিষয়ে নগদের অফিসার এনবি সাদেকুজ্জামান জানান, যারা পিনকোড ভুলে গেছেন বা পাননি, তাদের পিনকোড রিসেট করে দিচ্ছি। এজন্য সকল অভিভাবককে পঞ্চগড় পোস্ট অফিসে আসতে হবে। তবে পঞ্চগড়ে স্টাইপ অ্যাকাউন্টে পিনকোডের সমস্যা আছে। একজন কর্মচারী হওয়ায় কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। পিনকোড সেট হলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে টাকা তুলতে পারবেন অভিভাবকরা। 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান, অভিভাবকদের সচেতন করেছি। উপবৃত্তি মনিটরিং করার জন্য একজন অফিসার দেয়া হয়েছিল। বর্তমানে পদটি শূন্য। আমাদের হাতে কিছু নেই উপবৃত্তির চাবি এখন নগদের হাতে। তারপরও আমরা অভিভাবকদের যাতে ভোগান্তিতে পড়তে না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেব।