ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

সিলেটে পানি বেড়ে নতুন এলাকা প্লাবিত

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৪:৪২, ২১ জুন ২০২২

সিলেটে পানি বেড়ে নতুন এলাকা প্লাবিত

সিলেটে সুরমা নদীর পানি কমলেও আসামে টানা ভারী বৃষ্টির কারণে বেড়ে যাচ্ছে কুশিয়ারার পানি। পানি বেড়ে ভাঙন দেখা দিয়েছে কুশিয়ারা নদীরক্ষা বাঁধের বিভিন্ন জায়গায়। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা।

বাঁধ ভেঙে ও উপচে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে জকিগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, বালাগঞ্জ, দক্ষিণ সুরমা, ওসমানীনগর ও গোলাপগঞ্জ উপজেলায়।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপসহকারী প্রকৌশলী নিলয় পাশা জানান, মেঘালয়ের ঢলে সুরমা, ধলাই ও পিয়াইন নদীর পানি বাড়ে। আসাম থেকে ঢল নামলে কুশিয়ারার পানি বাড়ে। এখন ঢল নামছে আসাম থেকে। তাই কুশিয়ারা নদীর পানি বাড়ছে এবং ওই নদী তীরবর্তী এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে।

পাউবো জানায়, কুশিয়ারা নদীর পানি এতদিন ধীরে বাড়ছিল। রোববার থেকে অস্বাভাবিক গতিতে পানি বাড়তে শুরু করে। এতে শুরু হয় বাঁধের ভাঙন।

কুশিয়ারা তীরবর্তী উপজেলাগুলোতে লক্ষাধিক মানুষ নতুন করে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা পরিস্থিতির সবচেয়ে অবনতি হয়েছে জকিগঞ্জ উপজেলায়।

পাউবো আরও জানায়, সোমবার পর্যন্ত জকিগঞ্জ উপজেলায় ৩৯টি বাঁধ ভেঙে ও উপচে লোকালয়ে পানি ঢুকেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভাঙন দেখা দিয়েছে সুলতানপুর ইউনিয়নের ভক্তিপুর, সদর ইউনিয়নের রারাই, বীরশ্রীর সুপ্রাকান্দি, কাজলসারের বড়বন্দ এলাকায়। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নতুন করে আরও ভাঙনের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জে নদী ও নদী তীরবর্তী এলাকা পানিতে একাকার হয়ে গেছে। দুই উপজেলার প্রায় ৬০ শতাংশ প্লাবিত হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে বালাগঞ্জ-খছরুপুর ও ফেঞ্চুগঞ্জ-বালাগঞ্জ সড়ক দিয়ে যান চলাচল।

বিয়ানীবাজার উপজেলার বন্যাকবলিত এলাকায় পানি বৃদ্ধির পাশাপাশি নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। তলিয়ে গেছে উপজেলার চারখাই, আলীনগর, শেওলা, দুবাগ, কুড়ারবাজার ও থানা বাজারসহ বিভিন্ন এলাকা।

ওসমানীনগর উপজেলাতেও বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। উপজেলার গোয়ালাবাজার, তাজপুর, দয়ামীর, বুরঙ্গা, সাদিপুর, পশ্চিম পৈলনপুর, উসমানপুর ও উমরপুর ইউনিয়নের পুরোটাই পানিতে তলিয়ে গেছে।

তবে সুরমার পাশাপাশি সিলেটের ধলাই, পিয়াইন, সারি ও লোভা নদীর পানি কমছে। এসব নদী তীরবর্তী কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, সদর, কানাইঘাট ও বিশ্বনাথ উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুসিকান্ত হাজং বলেন, পানি খুব ধীর গতিতে কমছে। কাল সারা দিনে দুই সেন্টিমিটারও কমেনি। এখনও উপজেলা পরিষদ ভবন পানিতে তলিয়ে আছে।

সিলেট নগরীর উঁচু এলাকা থেকেও পানি নামতে শুরু করেছে। সোমবার সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে নেমেছে পানি।