ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

অসময়ের ভাঙনে দিশেহারা চরপৌলীবাসী

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬:১২, ২৫ মে ২০২২

অসময়ের ভাঙনে দিশেহারা চরপৌলীবাসী

ভাঙছে তীর

অসময়ে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি ও ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন চরপৌলী গ্রামের সাধারণ মানুষ। গত সাতদিনে যমুনা নদীঘেঁষা টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কাকুয়া ইউনিয়নের চরপৌলী ও উত্তর চরপৌলী গ্রামের পাঁচ শতাধিক বসতভিটা পড়েছে ভাঙনের কবলে।

মহামারির প্রভাব কাটিয়ে ওঠার সংগ্রামের মাঝেই যমুনার ভাঙনে এখন প্রায় নিঃস্ব এ এলাকার ভুক্তভোগীরা। ত্রাণের পরিবর্তে দ্রুত ভাঙন ঠেকানোর উদ্যোগে নেয়াসহ সহায়-সম্বল রক্ষায় স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন তারা।

এছাড়া যমুনা তীরবর্তী কালিহাতী উপজেলার আলীপুর, হাটআলীপুর, ভৈরববাড়ি, বিনোদলুহুরিয়া, কুর্শাবেনু গ্রামে ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। যমুনার ডানতীরে পাউবো স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করায় এবং যমুনার মাঝখানে নতুন চর জেগে ওঠার কারণে বাম তীরে ভাঙনের এই তীব্রতা বেশি লক্ষ করা গেছে।

এক সপ্তাহে ওইসব এলাকার সহস্রাধিক ঘরবাড়ি, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, ফসলি জমি নদীগর্ভে চলে গেছে। ভাঙন কবলিতরা অন্যের বা আত্মীয়ের বাড়িতে, আবার কেউ কেউ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে পরিবার-পরিজন নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন। অন্যদিকে ভাঙনের শঙ্কায় ওই এলাকায় বসবাসকারীরা বাড়িঘর সরিয়ে নিচ্ছেন।

জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর সেতুর দেড় কিলোমিটার ভাটিতে নিউ ধলেশ্বরী নদীর মুখে (অফটেকে) পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) চারটি পৃথক লটে ২৩৪ কোটি ২৪ লাখ ৭৮ হাজার টাকায় ১ হাজার ৫৩০ মিটার গাইড বাঁধ (অফটেক বাঁধাই) নির্মাণ করে। যমুনার মাঝ বরাবর নতুন চর জেগে ওঠায় পানির তীব্র স্রোতে গাইড বাঁধের ১ নম্বর লটের বিভিন্ন অংশে ইতোমধ্যে ফাটল দেখা দিয়েছে। 
অফটেকের ভাটিতে প্রতিরোধ ব্যবস্থা ভেঙে সদর উপজেলার চরপৌলী, উত্তর চরপৌলী আর কালিহাতী উপজেলার আলীপুর, হাটআলীপুর, ভৈরববাড়ি, বিনোদলুহুরিয়া, কুর্শাবেনু গ্রামে ভাঙন দেখা দিয়েছে।

ভুক্তভোগীদের বক্তব্যে জানা যায়, যমুনায় পানি বাড়া ও কমার সময় প্রতিবছর ওইসব এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়। তবে এ বছর বর্ষার আগেই ভাঙন শুরু হয়েছে। গত সাতদিন ধরে ভাঙনের তীব্রতা ব্যাপক আকার ধারণ করেছে।  

সরেজমিন দেখা গেছে, নদী তীরের মানুষ ঘরবাড়ি ভেঙে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিচ্ছেন। গাছগুলোও কেটে নিয়ে যাচ্ছেন, যাতে নতুন বাড়ি তৈরিতে কাজে লাগাতে পারেন। বঙ্গবন্ধু সেতুর ভাটিতে নিউ ধলেশ্বরীর অফটেক বাঁধাইয়ের পর থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ঘরবাড়ি সরিয়ে নেয়ার কর্মযজ্ঞ চলছে। 

ইতোমধ্যেই চরপৌলী গ্রামের ইউনুস মন্ডলসহ ভাঙনে বিলীন হয়েছে ওই এলাকার আব্দুর রশীদ শেখ, খন্দকার আলমাস মিয়া ও কাশেম মন্ডলের বাড়ি। সর্বস্ব হারানোর ভয়ে রয়েছে এখন ভাঙন কবলিত দশ হাজার ভোটারসহ এ তিনটি ওয়ার্ডের সাধারণ মানুষ। ভাঙনের আভাস পেয়ে কাকুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ অন্যরা বাড়িঘর অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছেন। এর মধ্যে কিছু হতদরিদ্র গ্রামবাসী টাকার অভাবে বাড়িঘর সরিয়ে নিতে পারচ্ছেন না বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

চরপৌলী গ্রামের মো. মাজম আলী ভূইয়া (৮৫) বলেন, এ পর্যন্ত আমার প্রায় সাড়ে ৪২ বিঘা জমি নদীতে বিলীন হয়েছে। চলতি ভাঙনেই গেছে প্রায় দেড়-দুই বিঘা জমি। এখন ভাঙনের কবলে রয়েছে ৮০ শতাংশের ওপর গড়া বাড়ির জমিটুকু। ভাঙনের ভয়ে ঘরগুলো সরিয়ে নিতে পারলেও জমি রক্ষার কোনো সম্ভাবনা নেই। অন্যত্র ঘর করতে বাড়ির জমিতে রোপণকৃত কিছু গাছ কেটে নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন তিনি। এছাড়া গ্রামটি রক্ষায় স্থায়ী বাঁধ নির্মাণেরও দাবি জানান এই প্রবীণ ব্যক্তি।

একই গ্রামের শাহাদত বলেন, এ বছর বন্যা না আসতেই ভয়াবহ ভাঙন শুরু হয়েছে। মাত্র পাঁচদিনে ৩৫০ হাত জমি বিলীন হয়েছে এ গ্রামটির। এত ভয়াবহ ভাঙন অন্যান্য বছরের বন্যায় হয়নি বলেও জানান তিনি।

কাকুয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আল আমিন জানান, মাত্র সাতদিনে ভাঙনকবলিত তিনটি ওয়ার্ডের পাঁচ শতাধিক ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হয়েছে। ভাঙনের শিকার পরিবারগুলোর বেশিরভাগ আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিচ্ছেন। তাদের অনেক দুর্ভোগের মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে।

ভাঙন ঠেকাতে পানি উনয়ন বোর্ডের কিছু জিও ব্যগ ফেলার কথা রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে যদি জিরো পয়েন্ট থেকে কিছু জিও ব্যাগ ফেলা হয় তবে উপকার হবে বলে অভিমত এলাকাবাসীর। 

আল আমিন আরো বলেন, ভাঙনকবলিত এ ওয়ার্ডগুলোর মধ্য থেকে গত বছর সিংগুলি, গয়লা আসন আর জিদারগোল গ্রামটি বিলীন হয়ে গেছে।

ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত সদর উপজেলার কাকুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ জানান, ভাঙনের কারণে এ নিয়ে চারবার তাকে বাড়িঘর সরিয়ে নিতে হচ্ছে। তবে চলতি বছর অসময়েই নদীর তীব্র ভাঙন শুরু হয়েছে। গত সাতদিনে এ ইউনিয়নের পাঁচ শতাধিক ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হয়েছে। ভাঙনরোধে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ এখন শুধু সময়ের দাবি নয়, জরুরি। তা না হলে আগামী ২-১ বছরের মধ্যে সদর উপজেলার মানচিত্র পাল্টে যাবে। এ বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও জানেন।

সরিয়ে নেয়া হচ্ছে ঘরবাড়ি

তিনি আরো জানান, চলতি সপ্তাহে স্থানীয় সংসদ সদস্য ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ত্রাণ দিয়েছেন। তবে বিপর্যয়ের এই মুহূর্তে ভুক্তভোগীদের ত্রাণের চেয়েও বেশি প্রয়োজন নগদ অর্থ সহায়তা। ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য অর্থ সহায়তার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

কালিহাতী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বলেন, বঙ্গবন্ধু সেতুর ভাটিতে মাঝ বরাবর যমুনায় নতুন চর জেগে উঠেছে। ফলে পূর্ব তীরে যমুনার ভাঙন তীব্রতর হচ্ছে। এছাড়া যমুনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদী তার গতিপথ পরিবর্তন করছে - এজন্যও ভাঙনে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।  

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানান, যেভাবে ভাঙন শুরু হয়েছে তাতে জরুরি কাজ করে এ ভাঙন ঠেকানো যাবে না। স্থায়ী বাঁধ নির্মাণে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। দ্রুত সে কাজের দরপত্র আহ্বান করা হবে। আগামি শুষ্ক মৌসুমে ভাঙনকবলিত স্থানে স্থায়ী বাঁধের কাজ শুরু করা হবে।

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ মো. ছানোয়ার হোসেন বলেন, একনেকে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার মাহমুদনগর থেকে চরপৌলী পর্যন্ত ১৫.৩ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পটির অনুমোদন হয়েছে। এর জন্য দুটি টেন্ডারে ৪২ কোটি আর ৭০ কোটি টাকা বরাদ্দেরও অনুমতি হয়েছে। এ বাঁধ নির্মাণের টেন্ডার ডকুমেন্টটি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। টেন্ডারটি খুব দ্রুত পাশ হয়ে যাবে। তবে এরপরও বর্ষায় কাজটি শুরু করা যাচ্ছে না। আশা করছি, আগামী বছরই আমরা শুষ্ক মৌসুমে বাঁধের নির্মাণ কাজ শুরু করতে পারবো।