ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

টাঙ্গাইলে বিড়ি চাওয়া নিয়ে ধানকাটা শ্রমিকের হাত কুপিয়ে বিচ্ছিন্ন 

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ২১:২১, ১২ মে ২০২২

টাঙ্গাইলে বিড়ি চাওয়া নিয়ে ধানকাটা শ্রমিকের হাত কুপিয়ে বিচ্ছিন্ন 

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে বিড়ি চাওয়াকে কেন্দ্র করে বচসার এক পর্যায়ে ধারালো কাচির কোপে ডান হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে সেলিম নামে এক শ্রমিকের। বৃহস্পতিবার (১২ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার ডুবাইল ইউনিয়নের বর্ণি গ্রামে ঘটেছে ঘটনাটি।

জানা যায়, বর্ণি গ্রামের শফিকুল ইসলাম তার জমির ধান কাটতে বিভিন্ন অঞ্চলের নয়জন শ্রমিক নিয়োগ করেন। সকালে তারা জমিতে ধান কাটতে যায়। ধান কাটা অবস্থায় অপর জমিতে কাজ করতে আসা বর্ণি গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে সেলিম নামে এক শ্রমিক শফিকুলের নিয়োগকৃত শ্রমিকদের কাছে বিড়ি চান। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে মাসুদ রানা ও আব্দুল লতিফ নামে শ্রমিক সেলিমের ডান হাত কুপিয়ে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন। খবরটি বর্ণি গ্রামে পৌঁছলে গ্রামের লোকজন শ্রমিকদের ঘেরাও করে মারধর শুরু করে। এ সময় স্থানীয়রা থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ছয় শ্রমিককে আটক করে। সে সময় জনরোষে পড়ে এক পুলিশ সদস্যও আহত হন। 

এদিকে পুলিশ ছয় শ্রমিককে আটক করলেও বাকি তিন শ্রমিক পালিয়ে যায়।

আটককৃত শ্রমিকরা হলেন - সিরাজগঞ্জ জেলার চৌহালি থানার আব্দুল আজিজ মিয়ার ছেলে মাসুদ রানা (৩৭), একই জেলার বেলকুচি এলাকার মো. মজিদ সরকারের ছেলে আব্দুল লতিফ (৩০),  টাঙ্গাইল সদর থানার ভবানিপুর গ্রামের মো. আছান মিয়ার ছেলে মো. জাহিদুল ইসলাম (৩০), সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি এলাকার মো. ময়নাল মিয়ার ছেলে মো. সাহাব উদ্দিন (২৭), গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ থানার বেলকা নবাবগঞ্জ গ্রামের মোজাম্মেল মিয়ার ছেলে নুরুজ্জামান (২৫) ও সিরাজগঞ্জ জেলার চৌহালী এলাকার আব্দুল আওয়াল মিয়ার ছেলে নূর আলম (২২)।
 
এ বিষয়ে দেলদুয়ার থানার ওসি মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বিড়ি চাওয়া নিয়ে বাকবিতণ্ডায় বর্ণি গ্রামের সেলিম নামে এক শ্রমিকের ওপর বিভিন্ন অঞ্চল থেকে কাজ করতে আসা শ্রমিকরা হামলা চালায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ছয় শ্রমিককে আটক করা হয়, বাকি তিন শ্রমিক পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় শ্রমিক সেলিমের ডান হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ভিকটিমের বড় ভাই দেলোয়ার হোসেন বাদি হয়ে থানায় মামলা করেছেন।