ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

পঞ্চগড়ে সার সংকটে ক্ষুদ্র চা চাষিরা 

পঞ্চগড় প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৭:১৯, ১১ মে ২০২২

পঞ্চগড়ে সার সংকটে ক্ষুদ্র চা চাষিরা 

পঞ্চগড়ের ক্ষুদ্র চা চাষিরা সারের সংকটে পড়েছেন। হাট বাজার গুলোতে প্রয়োজনীয় সার পাচ্ছেন না তারা। অন্যদিকে সাধারন কৃষকও সারের সংকটে পড়েছেন। বিশেষ করে পটাশ সার পাওয়া যাচ্ছেনা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন প্রয়োজনের তুলনায় বরাদ্দ কম পাওয়ার কারণে এই সংকট সৃষ্টি হয়েছে। 

পঞ্চগড় জেলায় বর্তমানে চায়ের মৌসুম চলছে । চা চাষিরা এসময় চা বাগানে বিভিন্ন সার প্রয়োগ করে থাকেন । অন্যদিকে পাট, বাদাম, তিল, ভুট্টা সহ নানা রকম অর্থকরী ফশলে সার প্রয়োগ করছেন সাধারন কৃষকরা। এছাড়া জৈষ্ঠ-আষাঢ় মাস আমন ধান রোপনের সময়। তাই চাষিরা আমন ধানের বীজ তলা উৎপাদনের জন্যও সারের প্রয়োজন। কিন্তু তারা প্রয়োজনীয় সার পাচ্ছেন না। এই সুযোগে সার ব্যবসায়ীরা বেশি দামে সার বিক্রি করছেন। ফলে চাষিদের মাঝে হতাশা দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন সঠিক সময়ে সার প্রয়োগ করতে না পারলে চায়ের উৎপাদন কমে যাবে। 

তেঁতুলিয়া উপজেলার তেলিপাড়া গ্রামের ক্ষুদ্র চা চাষি হাবিবুর রহমান জানান, বাজারের বহু দোকান ঘুরে সার পাওয়া যাচ্ছেনা । বিশেষ করে পটাশ সার পাওয়া যাচ্ছেনা। এসময় চা বাগানে সার দিতে না পারলে পাতা হবেনা । ফলে আমরা চা চাষিরা লোকসানে পড়ব। 

এদিকে জেলায় এবার পাটের আবাদ হয়েছে ৮ হাজার ৭শ ৫৫ হেক্টর জমিতে । এছাড়া বাদাম, ভুট্টা সহ বেশ কিছু অর্থকরী ফশলের চাষাবাদ হয়েছে।

বিসিআইসি ও বিএডিসির নির্ধারিত সার ডিলাররা বলছেন, পঞ্চগড়ে কৃষি আবাদ বেড়ে গেছে । প্রতিনিয়ত বাড়ছে চায়ের আবাদ। ফলে সারের চাহিদা বাড়ছে। সেই তুলনায় এই জেলায় সারের বরাদ্দ কম। 

তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর এলাকার সার ডিলার রফিকুল ইসলাম জানান, চা বাগান এবং কৃষি আবাদে যে পরিমান সারের প্রয়োজন আমরা তা পাচ্ছিনা । ফলে কৃষক সার পাচ্ছেনা। এই জেলায় আরও সারের বরাদ্দ প্রয়োজন । 

বাংলাদেশ চা বোর্ড পঞ্চগড় আঞ্চলিক কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে পঞ্চগড় জেলায় নিবন্ধিত ক্ষুদ্র চা বাগান রয়েছে ১ হাজার ১ শ ৬৮ টি। অনিবন্ধিত চা বাগান রয়েছে ৬ হাজার।৭ হাজার ২ শ ৮৩ একর জমিতে এই চায়ের আবাদ করা হয়েছে। জেলায় শুধুমাত্র চা চাষের জন্য বছরে ৪ হাজার মেট্রিকটন সারের প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু এই চা বাগানের বিপরিতে  বিসিআইসি  ইউরিয়া ৩শ মেট্রিক টন এবং বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশান (বিএডিসি) এবং বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিস কর্পোরেশান (বিসিআইসি)  টিএসপি ১’শ মেট্রিক টন ও ডিএপি ২’শ মেট্রিক টন মোট ৬’শ মেট্রিক টন সার বরাদ্দ দিয়েছে। তাই চা চাষিরা প্রয়োজনীয় সার পাচ্ছেননা। বাংলাদেশ চা বোর্ড পঞ্চগড় আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শামীম আল মামুন জানান, আমাদের গবেষণা মতে এই জেলায় চা চাষের জন্য বছরে ৪ হাজার মেট্রিক টন সারের প্রয়োজন রয়েছে। ক্ষুদ্র চা চাষিরা আরও সার বেশি ব্যবহার করেন । সেই তুলনায় আরও বেশি প্রয়োজন।