ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

অবশেষে ২০২২ সালে চালু হচ্ছে কুমেক ক্যাম্পাস, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

কুষ্টিয়া প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৩:৫০, ৭ নভেম্বর ২০২১

অবশেষে ২০২২ সালে চালু হচ্ছে কুমেক ক্যাম্পাস, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজের (কুমেক) নিজ ক্যাম্পাসে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা ছিল ২০১৪ সালে। এ বিষয়ে ২০১১ সালে কলেজটি নির্মাণের অনুমোদন দেয়া হয়। কিন্তু তিন বছরের এই প্রকল্প শেষ হচ্ছে নয় বছরে, তাও সম্পূর্ণ নয়, কাজ চলবে ২০২৩ সাল পর্যন্ত। শুধু তাই নয়, প্রথমে এর প্রাক্কলন ব্যয় ২৭৫ কোটি টাকা ধরা হলেও তা বেড়ে হয়েছে ৬৮২ কোটি টাকা। 

তবে সব সমস্যা পেরিয়ে আগামী বছর ২০২২ সালের শুরুতেই এই ক্যাম্পাসে শিক্ষাদানসহ সব ধরনের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম শুরু হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এতে বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে দেখা গেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। 

জানা গেছে, চলতি বছর ডিসেম্বরের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম শুরুর প্রয়োজনীয় অবকাঠামো - অ্যাকাডেমিক ভবন, ছাত্র-ছাত্রী হোস্টেলের অবকাঠামো নির্মাণের মূল কাজ সম্পূর্ণরূপে শেষ হবে। এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র সরবরাহের কার্যাদেশপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান মালামাল সরবরাহেরও প্রস্তুতি নিয়েছে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ডা. আমিনুল ইসলাম বলেন, অতীতে যা কিছুই হোক, আমরা আর পেছন ফিরে তাকাতে চাই না। আসছে নতুন বছরের শুরুতে আমাদের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা তাদের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম মূল ক্যাম্পাসে করতে পারবেন। এটা হবে আমাদের জন্য অনেক বড় প্রারম্ভিক অর্জন। 

প্রকল্পটি বাস্তবায়নকারী গণপূর্ত বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এ বছর অক্টোবরের মাঝামাঝি ৬৮২ কোটি টাকা প্রকল্প ব্যয় ধরে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ নির্মাণ প্রকল্পের দ্বিতীয় উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) অনুমোদন লাভ করেছে। ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত নির্মাণকাল মেয়াদের মধ্যে প্রকল্পটির সকল নির্মাণ কার্যক্রম সম্পন্ন করে সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে কঠোর নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

প্রকল্পটির গণপূর্ত বিভাগ কর্তৃক বাস্তবায়নযোগ্য কাজগুলো সম্পন্ন করতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৮৮ কোটি টাকা এবং বাকি ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রমসহ আনুষঙ্গিক চিকিৎসা খাতের যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামাদি বাবদ। 

শিক্ষার্থী রিফাতুল্লাহ বলেন, আমরা আমাদের ক্যাম্পাসে ফিরে যাচ্ছি - এই  মহাবাণী অনেকবার শুনেছি। কিন্তু মাস ঘুরে বছর পেরিয়ে আমাদের সিনিয়ররা যেভাবে ক্যাম্পাসের স্বাদবঞ্চিত হয়ে অপূর্ণতা নিয়ে চলে গেছেন, আমরাও পূর্বসূরিদের অনুসরণ করে প্রায় যাওয়ার পথে। তবুও যারা থাকবে - আগামী কয়েক বছর পর্যন্ত, তারা অন্তত অপূর্ণতা নিয়ে ফিরবে না; এটাই বা কম কিসে। 

কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজের ইন্টার্ন শিক্ষার্থী সায়মা যুথী বলেন, ‘শরীরের নাম মহাশয় যাহা সহাবে তাহাই সয়’ - এই অনুভূতিকে ধারণ করে অনেক কষ্ট ও বঞ্চনার বেদনা নিয়ে প্রায় শেষ করে ফেললাম জীবনের প্রাণচাঞ্চল্যের মেডিক্যাল শিক্ষাজীবন। শিক্ষাজীবনে প্রাণের ক্যাম্পাসের কোনো স্বাদ পায়নি। তবুও বলব, আমাদের অনেক সৌভাগ্য। আগামী বছরের শুরুতে আমরা আমাদের ক্যাম্পাস, হল জীবন, মুক্ত বাতাসে ঘোরাঘুরির সুযোগ পাব - ভাবতেই ভালো লাগছে।

কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. দেলদার হোসেন বলেন, আমার মন্তব্য জানতে চাইলে বলব - ‘বন্যেরা বনে সুন্দর শিশুরা মাতৃক্রোড়ে’। প্রকৃত অর্থে যার যেখানে যে অবস্থায় থাকার কথা সেখানে কোনো বিচ্যুতি ঘটলে যা হয়, কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসা শিক্ষা কার্যক্রমের ক্ষেত্রেও তেমনটি হয়েছে। তবে সবশেষ কথা হলো, আমরা মূল ক্যাম্পাসে মনোরম পরিবেশে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করতে যাচ্ছি, এজন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। একই সঙ্গে জেলাবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।

উল্লেখ্য, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সীমাহীন অনিয়ম-দুর্নীতি, সংশ্লিষ্ট গণপূর্ত বিভাগের অব্যবস্থাপনা ও অস্বচ্ছতার সঙ্গে যুক্ত স্থানীয় রাজনৈতিক প্রভাবে মুখ থুবড়ে পড়া নির্মাণাধীন কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ প্রকল্পটির দ্বিতীয় ডিপিপি অনুমোদনের জন্য এ বছরের শুরুতে একনেক সভায় উপস্থাপন করা হলে একনেক সভাপতি প্রধানমন্ত্রী ক্ষুব্ধ হন এবং আইএমইকে তদন্তের নির্দেশ দেন। সেই থেকে প্রকল্পের চলমান নির্মাণকাজ বন্ধ ছিল।