ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

মাহাদির অবস্থা কিছুটা ভালো

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:৪২, ১ নভেম্বর ২০২১

মাহাদির অবস্থা কিছুটা ভালো

ছবি ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের (চমেক) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মাহাদি জে আকিবের অবস্থা আগের তুলনায় এখন কিছুটা ভালো বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা। 

তারা জানিয়েছেন, মাহাদি চোখ মেলেছেন। অল্প করে হলেও হাত-পা নাড়াতে পারছেন। তাকে আজ সোমবার (১ নভেম্বর) মুখে খাবার দেয়ার চেষ্টা করা হবে। তবে মাহাদিকে নিয়ে আশঙ্কা এখনো পুরোপুরি কাটেনিও বলে জানান চিকিৎসকরা।

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে গত ৩০ অক্টোবর প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহত হন মাহাদি। ওই ঘটনার পর থেকে তাকে চমেক হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, সংঘর্ষকালে প্রতিপক্ষ মাহাদির মাথায় আঘাত করে। এতে তার মস্তিষ্ক ও খুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দ্রুত হাসপাতালে ভর্তির পর সেদিনই তার অস্ত্রোপচার করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর তার মাথার খুলির হাড়ের একটা অংশ পেটের চামড়ার নিচে রেখে দেয়া হয়। পরে তা আবার প্রতিস্থাপন করা হবে।

মাহাদির বর্তমান অবস্থা প্রসঙ্গে নিউরো সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক নোমান খালেদ চৌধুরী বলেন, আস্তে আস্তে তার উন্নতি হচ্ছে। তাকে আমরা পর্যবেক্ষণে রেখেছি। তবে যেহেতু ব্রেনে আঘাত, তাই তাড়াতাড়ি কিছু বলা সম্ভব নয়। তবে আমরা আশাবাদী।

গতকাল রোববার বিকেলে মাহাদির জ্ঞান ফিরেছে। তিনি চোখ মেলে তাকাচ্ছেন। কথা বলারও চেষ্টা করছেন। গতকাল থেকে তাকে রাইস টিউব দিয়ে তরল খাবার দেয়া হচ্ছিল। নিউরো সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহফুজুল কাদের আজ সকালে তাকে দেখতে যান। এ সময় তিনি আজ থেকে রাইস টিউব খুলে মুখে খাবার দেয়ার পরামর্শ দেন।

মাহফুজুল কাদের বলেন, ছেলেটা আজ ভালো আছে। মুখে খাবার দেয়ার চেষ্টা করতে বলেছি। তার ডান বা বাঁ পাশ কোনো দিকে কোনো দুর্বলতা দেখিনি। হাত-পা নাড়াচ্ছে। আশা করি, সুস্থ হয়ে উঠবে।

মাথার খুলে ফেলা খুলির হাড় প্রসঙ্গে মাহফুজুল বলেন, সাধারণ নিয়ম হচ্ছে তিন মাসের মধ্যে প্রতিস্থাপন করা। কিন্তু সবকিছু যদি ভালো থাকে, দ্রুত ব্রেনের উন্নতি হয়, তাহলে এক মাসেও সেটা প্রতিস্থাপন সম্ভব।

এদিকে অসুস্থ মাহাদির মাথায় ব্যান্ডেজ করা অবস্থায় একটা ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ব্যান্ডেজের ওপর লেখা আছে ‘হাড় নেই, চাপ দিবেন না’।

চমেকে ছাত্রলীগের দুটি পক্ষ সক্রিয়। এর একটি সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের এবং অপর পক্ষটি শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারী।

৩০ অক্টোবরের ঘটনার পর ওইদিন থেকে চমেক অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার্থীরা কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুসারে ওইদিনই ছাত্রাবাস ত্যাগ করেন। সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ এ পর্যন্ত দুই শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করেছে।