ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ইবিতে উপাচার্যের কার্যালয়ে হামলা, ২ কর্মকর্তা লাঞ্ছিত

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯:৩২, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ২০:১৩, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

ইবিতে উপাচার্যের কার্যালয়ে হামলা, ২ কর্মকর্তা লাঞ্ছিত

কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) উপাচার্যের কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। তারা বিশ্ববিদ্যালয়টির দুজন কর্মকর্তা লাঞ্ছিত করেন বলেও জানা গেছে।  

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন ইবি উপাচার্য আবদুস সালামের ব্যক্তিগত সহকারী ও উপরেজিস্ট্রার আইয়ুব আলী।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের প্রাক্তন কয়েকজন নেতাকর্মীসহ বহিরাগতরা এ হামলা চালিয়েছেন। ঘটনার সময় উপাচার্য আবদুস সালাম নিজ বাসভবনে ছিলেন।

এদিকে এই ঘটনার পরপরই সেখানে যান ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর শফিকুল ইসলামসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ নিয়ে বিকেলে উপাচার্যের বাসভবনে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

উপরেজিস্ট্রার আইয়ুব আলী জানান, দুপুর ২টার দিকে উপাচার্য আবদুস সালাম নিজ বাসভবনে যান। এরপর তিনি প্রশাসনিক ভবনের দোতলায় উপাচার্যের কার্যালয়ে যান। সেখানে দুপুরের খাবার খান। দুপুর আড়াইটার দিকে ১৮ থেকে ২০ জন যুবক কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। এর মধ্যে একজন যুবক একটি ফাইল ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে উচ্চস্বরে কথা বলতে থাকেন।

তখন আইয়ুব আলী ওই যুবকদের বলেন, উপাচার্যসহ অন্য কর্মকর্তারা ফাইলের বিষয়টি দেখভাল করেন। তিনি এ বিষয়ে কিছু জানেন না। এ কথা শুনে যুবকরা উত্তেজিত হয়ে কার্যালয়ের ভেতরে থাকা চেয়ার-টেবিলসহ অন্যান্য আসবাবপত্র ভাঙচুর শুরু করেন। এ সময় তারা টেবিলে থাকা গুরুত্বপূর্ণ ফাইলপত্র মেঝেতে ছুড়ে ফেলেন। একপর্যায়ে তাকে মারধরের চেষ্টা করেন ওই যুবকরা। এ সময় উপরেজিস্ট্রার মোল্লা শফিকুল ইসলাম তাদের ঠেকানোর চেষ্টা করলে তাদের দুজনকেই গালাগাল করা এবং হুমকি দেয়া হয়।

পরে আইয়ুব আলী ওই কক্ষ থেকে বের হয়ে রেজিস্ট্রারের কক্ষে গিয়ে মোবাইল ফোনে বিষয়টি উপাচার্যকে জানান। এর কয়েক মিনিট পর হামলাকারীরা ওই ভবন থেকে চলে যান।

হামলাকারীদের প্রায় সবাইকে চেনেন জানিয়ে আইয়ুব আলী বলেন, তারা একসময় ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। হামলার সময় আমার সঙ্গে তারা যা করেছেন, তা মারধরের চেয়েও অনেক বেশি। আগের উপাচার্যের মেয়াদে হামলাকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে দিন হাজিরায় শ্রমিকের কাজ শুরু করেছিলেন। বর্তমান উপাচার্য যোগদানের পর সেই কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এরপর তারা তাদের চাকরির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিভিন্ন সময়ে আসতেন।

এ বিষয়ে সংবাদমাধ্যমকে উপাচার্য আবদুস সালাম বলেন, এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছেন, তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেউ নন, বহিরাগত। সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে বৈঠক করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।