ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

মতলব উত্তরে পাটের বাম্পার ফলন, দাম নিয়ে শঙ্কায় চাষীরা

মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 18:16, 7 August 2023

মতলব উত্তরে পাটের বাম্পার ফলন, দাম নিয়ে শঙ্কায় চাষীরা

চলতি বছর আবহাওয়া অনুকূল থাকায় চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে ফলন ভালো হলেও দাম নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

জানা গেছে, এ বছর পাট বিক্রির শুরুতেই গত বছরের চেয়ে মণপ্রতি দাম কমেছে ১ হাজার টাকা। এক্ষেত্রে কারণ হিসেবে উঠে এসেছে সরকারি-বেসরকারি পাটকলগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গ। পাটচাষীদের দাবি, ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে যত শিগগির সম্ভব পাটের দাম নির্ধারণ করে দেয়া হোক।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার বেশির ভাগ এলাকায় চলছে পাট কাটা ও জাঁক দেয়া। কেউ কেউ জাঁক দেয়া পাট থেকে আঁশ ছাড়াচ্ছেন।

চাষীরা জানান, কয়েক বছর আগেও তারা পাট চাষ করে লোকসান গোনেন। তাই অনেকে বাধ্য হয়ে অন্য ফসলের দিকে ঝুঁকে পড়েন। মাঝে স্বল্প পরিসরে যারা পাটের আবাদ ধরে রেখেছেন, তারা লাভবান হয়েছেন। তাদের দেখে অন্যরা আবারো পাট চাষে ফিরেছেন।

তারা আরো জানান, গত বছর ভালো দাম পাওয়ায় চলতি মৌসুমে পাট চাষ বেড়েছে। এছাড়া এবার আবহাওয়ায়ও ছিল অনুকূল। ফলে বাম্পার ফলন হয়েছে। কিন্তু পাটকলগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এ বছর দাম কমে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। 

মতলব উত্তর উপজেলার সুগন্ধি গ্রামের মো. আলাউদ্দিন (৪৮) এবার ২৫ শতাংশ জমিতে পাট চাষ করেছেন। তিনি বলেন, এবার ফলন ভালো হয়েছে। কিন্তু বাজারে পাটের দাম অনেক কম। এতে লোকসান হবে।

আমান উল্লাহ (৫০) নামে আরেকজন বলেন, গত বছর দুই বিঘা জমিতে পাট আবাদ করে কিছুটা লাভ করতে পেরেছিলাম। তাই এবার আবাদ বাড়িয়েছি। কিন্তু গতবারের চেয়ে এবার পাটের দাম মণপ্রতি ১ হাজার টাকা কমে গেছে। 

তিনি আরো বলেন, সরকার যদি দাম না বাড়ায় তাহলে আমাদের পাটের আবাদ থেকে সরে আসতে হবে। সরকারের উচিত পাটের দাম নির্ধারণ করে দেয়া।

এদিকে পাটের ফলন ভালো হওয়ায় এলাকার ‘মৌসুমি’ শ্রমিকদের ব্যস্ততা বেড়েছে। সুগন্ধি  গ্রামের রোশন আরা বেগম, বেনু বেগম ও খোশেদা বেগম জানান, এক আঁটি জাঁক দেয়া পাট থেকে আঁশ ছাড়িয়ে ২০ টাকা পাওয়া যায়। সব মিলিয়ে দিনে ১০০ থেকে ১২০ টাকার মতো আয় হয়। 

এদিকে পাইকাররা জানান, মিল মালিকরা পাটের সঠিক দাম না দেয়ায় এবং গত বছরের বকেয়া বিল থাকায় কৃষকদের কাছ থেকে কম দামে পাট কিনতে হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই উপজেলায় গত বছর মণপ্রতি ২ হাজার ৭০০ থেকে ৩ হাজার টাকায় পাট বিক্রি করেছেন কৃষক। বর্তমানে সেই দাম নেমে এসেছে ২ হাজার টাকারও নিচে। 

এসব বিষয়ে মতলব উত্তর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফয়সাল মোহাম্মদ আলী বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার পাটের আশানুরূপ ফলন হয়েছে। কৃষকরা এখন দাম কিছুটা কম পাচ্ছেন। তবে তারা যদি পাটের আঁশ দেড় থেকে দুই মাস মজুদ রাখেন, তাহলে আশা করছি দাম বাড়বে। তখন কৃষক লাভ করতে পারবেন। 

তিনি বলেন, চলতি বছর উপজেলায় ২৮০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। হেক্টরপ্রতি ফলন হয়েছে ১.৬ মেট্রিকটন। এ ধারাবাহিকতা বজায় রাখলে পাটের যে সোনালি দিন ছিল সেটা খুব অল্প সময়ের মধ্যে ফিরে আসবে।  

তিনি আরো জানান, এ উপজেলায় পাটের উৎপাদন ভালো হওয়ায় চাষীদের নিয়মিত বিভিন্ন পরামর্শ ও সহায়তা দেয়া হয়। এ বছর ভালো দাম পেলে আগামীবার আরো বেশি সংখ্যক কৃষক পাট চাষে উদ্বুদ্ধ হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ফয়সাল মোহাম্মদ আলী।