ঢাকা বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

আশানুরূপ দাম না পেয়ে হতাশ ফুলবাড়ীর আলুচাষিরা 

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৫:৩০, ৭ জানুয়ারি ২০২৩

আশানুরূপ দাম না পেয়ে হতাশ ফুলবাড়ীর আলুচাষিরা 

আগাম জাতের আলু চাষে আশানুরূপ ফলন পেলেও তেমন দাম না থাকায় বর্তমানে আলুতে উৎপাদন খরচও তুলতে পারছেন না দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর আলুচাষিরা। গত বছরের মতো এবারও আলু চাষ করে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের। 

উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের পলি শিবনগর গ্রামের আলুচাষি আব্দুর রহিম জানান, তার ১৬ শতক জমিতে ৮০ কেজি আলু হয়েছে। বাজার দর অনুযায়ী এই আলুর দাম ২৩ হাজার ১০০ টাকা। অথচ এই পরিমাণ আলু উৎপাদনে তার খরচ হয়েছে প্রায় ২৬ হাজার টাকা। প্রতি কেজি আলু উৎপাদনে খরচ প্রায় ১৪ টাকা।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে জানা যায়, চলতি বছর উপজেলায় ৪৫ হাজার ৮৬২ মেট্রিক টন আলু উৎপাদনের লক্ষ্যে ১ হাজার ৯৯৪ হেক্টর জমিতে আলু চাষ করা হয়েছে। এতে প্রতি হেক্টর জমিতে উৎপাদন ধরা হয়েছে ২৩ মেট্রিক টন। 

আলুচাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার পৌর এলাকাসহ সাতটি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় ক্যারেড, কার্ডিনাল, ডায়মন্ড, গ্রানুলা, এস্টারিকা, রোমানা, শিল বিলাতি, সাদা পাটনাই, লাল পাটনাই ও সেভেন জাতের আলু আবাদ হয়েছে। আলুর জাত ও ধরন অনুযায়ী আলুতে বীজের মূল্য এবং পরিচর্যা অনুযায়ী উৎপাদন খরচের বেশ তারতম্য রয়েছে। গ্রানুলা জাতের আলুতে প্রতি বিঘায় চাষাবাদ খরচ ২৮-৩০ হাজার টাকা এবং এস্টারিকা, রোমানা, শিল বিলাতি, সাদা পাটনাই, লাল পাটনাই ও সেভেন জাতের আলুতে ৩৫-৩৮ হাজার টাকা।

রাজারামপুর মাছুয়াপাড়া গ্রামের আলুচাষি রঞ্জিত দাস বলেন, ক্যারেড ও রোমানা জাতের আলু আবাদ করেছেন ২ বিঘা জমিতে। বাজার দর অনুযায়ী প্রতি বিঘা জমিতে কমপক্ষে ১২ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হবে তাকে। অথচ এর আগে আগাম জাতের আলু এক বিঘা জমিতে আবাদ করে আশানুরূপ লাভ করেছেন। আগাম জাতের আলু ৮০ কেজি ওজনের এক বস্তা আলু দুই হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৬৫০ থেকে এক হাজার ৭০০ টাকা দরে। 

উপজেলার আমডুঙ্গি, বারাইহাট, ফুলবাড়ী পৌর বাজার ও আটপুকুর এলাকার আলুচাষিদের কাছ থেকে সরাসরি আলু কিনছেন মতিয়ার রহমান নামে নাটোরের এক আলু ব্যবসায়ী। তিনি জানান, ক্যারেড, রোমানা, কার্ডিনালসহ সব জাতের আলুর দাম কেজিতে ৫-৭ টাকা কমে বেচাকেনা হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুম্মান আক্তার বলেন, চলতি মৌসুমে উপজেলার সব এলাকাতেই আলুর উৎপাদন ভালো হয়েছে। তবে দাম কমে আসায় কৃষকদের লাভ একটু কম হলেও লোকসান হবে না।