ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

লাল শাপলায় ছেয়ে গেছে আশুরার বিল

দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫:২৪, ১২ অক্টোবর ২০২২

লাল শাপলায় ছেয়ে গেছে আশুরার বিল

"তুমি সুতোয় বেঁধেছ শাপলার ফুল, নাকি তোমার মন। ঝিলের জলের শাপলা-শালুকে মন ভরে যায় গ্রামের কিশোর-কিশোরীর। কারও জীবনের প্রথম প্রণয়। প্রকৃতি ও ইতিহাসের পাতায় নীরবে-নিভৃতে শাপলা প্রকাশ করেছে মানব হৃদয়ের পরিমাপ। বিশ্বে শাপলার ৩৫ জাত । এর মধ্যে দেশে বেশি ফোটে লাল ও সাদা শাপলা। বৈচিত্র্যে ও ইতিহাসে সাদা শাপলা অনন্য। সাদা শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল যা দেশে দেশে, মানুষে মানুষে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যরে মেলবন্ধনে গেঁথে রেখেছে। প্রকৃতির সঙ্গে ফুলের নিবিড় সম্পর্ক মানব হৃদয়ে ভালবাসার প্রতীক হয়ে এসেছে। শাপলা নিয়ে রচিত হয়েছে কত কথা, কত সুর! 

লাল আর সাদা শাপলা ফুল শোভা ছড়াচ্ছে। দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার আশুরার বিলে। উপজলার গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নর ৫৮৮.২২ একর এলাকা জুড়ে এই আশুরার বিলের অবস্থান। বিলের একাংশ শাপলা ফুটে থাকে। বছরের বেশির ভাগ সময় লাল সাদা শাপলার সমাহার থাকে। লাল শাপলার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হচ্ছে এলাকা ও উপজেলাবাসী। সৌন্দর্য উপভোগ করতে উপজেলার গন্ডি পেরিয়ে বিভিন্ন স্থান থেকে বিলের ধারে ভিড় জমাচ্ছেন পর্যটকরা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, শাল, তমাল, বাঁশ আর বেতের বনের মধ্যখানে এই বিশাল আশুরার বিল। এ বিল এখন লাল-সবুজের লীলাভূমি। দূর থেকেই এর সৌন্দর্য নজর কাড়ে সবার। কাছে যেতেই মন ভুলিয়ে দেয় জাতীয় ফুল শাপলার সৌন্দর্য। এ যেন প্রকৃতির বুকে আঁকা এক নকশিকাঁথা। সূর্যের আভাকেও যেন হার মানিয়েছে এ বিলে ফোটা লতাপাতা গুল্মসহ লাল ও সাদা শাপলা। কাছ থেকে দেখে মনে হবে লাল-গোলাপি চাদর বিছিয়ে রাখা আছে। প্রাকৃতিকভাবেই এই শাপলার অবারিত সৌন্দর্য যে কাউকে মুগ্ধ করবে। রুপসী বাংলার এই সৌন্দর্যের প্রশংসা এখন গ্রাম ছাড়িয়ে পৌঁছে গেছে উপজেলা ও জেলাতেও।

ফুল হলো পবিত্র সৌন্দর্যের প্রতিক। ফুলকে ভাল বাসেনা এমন মানুষ কম আছে। বেশির ভাগ ফুল গাছে শোভা পায়। কিন্তু পানিতে শোভা পায় শাপলা ফুল। খাল বিলের পানিতে দেখা মিলে এই ফুলের। দিন দিন খাল বিল কমে যাওয়ায় কমে যাচ্ছে এ ফুলের সমাহার। কিন্তু আশুরার বিলে দেখা মিলে বিপুল পরিমাণ শাপলা ফুলের। শিশির ভেজা রোদমাখা সকালে এই বিলে চোখ পড়লেই মেলে, লাল সাদা রংবেরঙের শাপলার বাহারি রূপ, দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। বিলের যতদূর চোখ যায়, তার পুরোটাজুড়েই এখন লাল সাদা শাপলার সমাহার। প্রকৃতিতে নিজের রূপ বৈচিত্র আকার বিলিয়ে দিচ্ছে বিলে ফুটে থাকা এ জলজ ফুলের রানী জাতীয় ফুল শাপলা। মাঝে মাঝে ফুটে আছে পদ্ম ফুলও। আশুরার বিলের একাংশে একটি শাপলা বিল অপর অংশে একটি পদ্মবিল রয়েছে যেখানে বছরের বেশির ভাগ সময় লাল সাদা শাপলার আর পদ্ম ফুলের সমাহার থাকে। যার সৌন্দর্য যে কোন পর্যটককে মুগ্ধ করে। তাই ফুলের এ সৌন্দর্য উপভোগ করতে আশুরার বিলে দুর দুরান্ত থেকে প্রতিদিন আসছেন প্রকৃতি প্রেমিকরা।

আশুরা বিলে ঘুরতে আসা নীলফামারী জেলার গণমাধ্যম কর্মী জসিম উদ্দিন বলেন, নীলফামারী থেকে আশুরার বিলের দূরত্ব খুব বেশী না। এই বিলের নানা কথার সাথে এই লাল সাদা শাপলা'র কথা অনেক শুনেছি কিন্তু কখনো আসা হয়নি। এবার দেখতে আসা। সত্যি আশুরার বিল এবং একে ঘিরে শাল, বাঁশ, বেত বন পর্যটনের জন্য এক অপার সম্ভাবনাময় স্থান হতে পারে উত্তরাঞ্চলের জন্য। এবার এসেছি সহকর্মীদের সাথে আগামীতে আসব পরিবার পরিজন নিয়ে এই প্রকৃতির লিলা ভূমিতে এর রূপ আস্বধনে।

শাপলা বিল দেখতে আসা শিক্ষার্থী আনিকা বলেন, তিনি পার্বতীপুর থেকে এসেছেন। সকালে বিলে এসেই দেখা মিলে রং-বেরঙের বাহারী রূপের শাপলা। বিলের যতদূর চোখ যায় ততোদূর এখন লাল-সাদা শাপলার সমাহার কিন্তু বিলের সৌন্দর্য টিকে রাখতে বিলের পরিচর্যা প্রয়োজন।

স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী সুলতান মাহমুদ বলেন, ফুল হচ্ছে পবিত্র সৌন্দর্যের প্রতীক । ফুলকে ভালোবাসে না এমন মানুষ কম আছে।বেশির ভাগ ফুল গাছে শোভা পায়। কিন্তু পানিতে শোভা পায় শাপলা ফুল। খালবিলের পানিতে দেখা মিলে এই ফুলের। দিনদিন খালবিল কমে যাওয়ায় কমে যাচ্ছে এ ফুলের সমাহার। কিন্তু আশুরার বিলে দেখা মিলে বিপুল পরিমাণ শাপলা ফুল। ফলে ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আশুরার বিলে দূর-দূরান্ত থেকে আসেন প্রকৃতি প্রেমিরা। আর এই শাপলার সমাহার কে টিকিয়ে রাখতে অতিশীঘ্রই আশুরা বিলকে সংস্কার করার জন্য উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনিমেষ সোম জানান, নবাবগঞ্জ জাতীয় উদ্যানের সুবিশাল শালবন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি। এই বন ঘেঁষে ঐতিহ্যবাহী আশুরার বিলের অবস্থান। বন ও বিলের সহাবস্থান আশুরার বিলকে অনন্যতা দিয়েছে ও চিত্তাকর্ষক করেছে। শাপলা ফুল এ সৌন্দর্যকে আরো বৃদ্ধি করে তুলেছে। সম্প্রতি আশুরার বিলটি খননের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। খনন হলে আরো বিপুল আকারে এ ফুলের দেখা মিলবে। আশুরার বিল নবাবগঞ্জ জাতীয় উদ্যানের শালবন সংলগ্ন গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের ৫৮৮.২২ একর এলাকা জুড়ে অবস্থিত। 

এই বিলে নির্মিত শেখ ফজিলাতুন নেছা আঁকা-বাঁকা কাঠের সেতু পর্যটকদের আকর্ষনের কেন্দ্রবৃন্দুতে পরিনত হয়েছে। এ বিলকে পরিপূর্ণ একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে প্রশাসন থেকে নেয়া হয়েছে মহা পরিকল্পনা বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।