ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

খামারবাড়ির কোনো রুমে কেউ চা-শিঙাড়া খাইতে পারবেন না : কৃষিমন্ত্রী

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৯:২৮, ১৬ জুন ২০২২

খামারবাড়ির কোনো রুমে কেউ চা-শিঙাড়া খাইতে পারবেন না : কৃষিমন্ত্রী

করোনা অতিমারিকালে নানা প্রতিবন্ধকতায় দেশের কৃষি খাতের অগ্রগতি ধীর হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে দেশের কৃষিবিদ ও বিজ্ঞানীদের আরো উদ্যোগী হওয়ার তাগিদ দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, কেউ যেন অযথা ‘চা-শিঙাড়া’ খেতে খেতে ‘গল্পগুজব করে’ সময় নষ্ট না করেন। 

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) ঢাকার কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে জাতীয় ফল মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন আব্দুর রাজ্জাক।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘কে কী কাজ করে? এই বসে বসে একজন আরেকজনের রুমে গিয়া চা খাইলো, শিঙাড়া খাইলো … কেউ কারোর রুমে গিয়া চা খাইতে পারবেন না। কেউ কারোর রুমে গিয়া শিঙাড়া খাইতে পারবেন না।’

তিনি আরো বলেন, ‘যদি বড় কোনো বিদেশি বা উদ্যোক্তা আসে, তাকে আপনি চা খাওয়ান। কিন্তু পাশের রুম থেকে ইকোনমিক বিজ্ঞানী আপনার রুমে আসবে, আর চা-শিঙাড়ার অর্ডার দিবেন, গল্পগুজব করবেন … এগুলা আইন করে, অর্ডার দিয়া বন্ধ করে দেন, সব ডিজিদের বলছি। খামারবাড়ির কোনো রুমে কেউ চাও খাওয়াইতে পারবেন না, শিঙাড়াও না। আমি এই অর্ডার দেখতে চাই।’ 

গত এক দশকে কৃষিক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য এলেও দেশের মানুষের জন্য পুষ্টি ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে এখনো পিছিয়ে আছে দেশ। এমন মন্তব্য করে কৃষিবিদ ও বিজ্ঞানীদের উদ্দেশে আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘খালি দুইটা পেপার বের করার জন্য গবেষণা করলে তো হবে না, গবেষণা মাঠভিত্তিক হতে হবে। আমাদের আরো বেশি করে কাজ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ২০০৮ সালে সরকার গঠনের সময় আওয়ামী লীগ দারিদ্র্য কমিয়ে আনার এবং দানাজাতীয় খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল এবং সরকার তা করেছে। 

তিনি বলেন, ‘আমরা দানাদার খাদ্যে অনেকটা স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি, এবার আমাদের চ্যালেঞ্জ হলো পুষ্টিজাতীয় ও নিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তার জন্য কাজ করব।’

আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘উন্নয়নের সকল সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতি হয়েছে। চাল উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে তৃতীয়। এছাড়া শাক-সবজি, তেল, আলু জাতীয় শস্য, আমিষ জাতীয় খাবার, সকল ক্ষেত্রেই উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু আমরা লক্ষ্য করছি, বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় খুবই কম, যা দিয়ে তারা পুষ্টিসম্মত খাবার কিনে খেতে পারে না। মানুষের আয় কম হওয়ায় ফসল একটু বেশি উৎপাদন হলেই বাজারে সেগুলি আর বিক্রি হয় না ‘ 

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের মাথাপিছু জমি কম, যে জমি আছে সেখান থেকে আমাদের প্রধান যে খাবার, শর্করা জাতীয় খাবার, সেটা নিশ্চিত করতে হয়। তারপর অন্যান্য শাকসবজি ফলমূল আমরা সেভাবে উৎপাদন করতে পারি না।’

কৃষিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের জমির পরিমাণ কম, পানির স্তরও কমছে। অন্যদিকে জনসংখ্যা বাড়ছে। এই বিশাল জনগোষ্ঠীর খাদ্যের জোগান দেয়া কঠিন চ্যালেঞ্জ।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের ৬০-৭০ শতাংশ মানুষ যারা গ্রামে বাস করে, কোনো না কোনোভাবে কৃষির সাথে জড়িত। আয় কম হওয়ায় তারা পুষ্টিকর খাবার পায় না। সেই গ্রামীণ মানুষের পুষ্টির চাহিদা বিজ্ঞানসম্মতভাবে কীভাবে মেটানো যায়, সেটা আমাদের বিজ্ঞানীদের ভাবতে হবে।’

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০২১ সালের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে দেশে মোট ৪.০২ লাখ হেক্টর জমিতে ৭৮ প্রজাতির ৫১.৪ লাখ মেট্রিক টন ফল উৎপাদন হয়। অথচ দেশে ফলের চাহিদা ১ কোটি ১৭ লাখ মেট্রিক টন। অর্থাৎ, ঘাটতি ৬৫.৪ লাখ মেট্রিক টন বা ৫৭ শতাংশ।

বাংলাদেশে এত প্রজাতির ফল চাষ হলেও প্রধান ফল ১০-১২টি। মোট উৎপাদনের ৭৭ শতাংশ আসে আম, কলা, কাঁঠাল, তরমুজ এবং আনারস থেকে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ একটা সময় ৫৫ মিলিগ্রাম করে ফল-সবজি খেতাম দৈনিক, এখন খাই ৮২ মিলিগ্রাম। অথচ এটা হওয়া দরকার কমপক্ষে ২০০ মিলিগ্রাম। এটা কীভাবে আমরা করব?’

তিনি বলেন, ‘আমরা প্রায় ৯০ শতাংশ তেল জাতীয় ফসল বিদেশ থেকে আমদানি করি। কিন্তু আমরা যদি বিজ্ঞানসম্মতভাবে আমাদের কর্মসূচি মাত্র ৩ বছর চলমান রাখতে পারি, তাহলে আমাদের ৪০ শতাংশ তেলের চাহিদা দেশীয় উৎপাদন থেকে পূরণ করতে পারি।’

বাংলাদেশকে স্বর্গের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, ‘এনিথিং ক্যান বি গ্রোন এনিহোয়্যার ইন দ্য ওয়ার্ল্ড, দ্যাট ক্যান বি গ্রোন ইন বাংলাদেশ। আমার এটাই মনে হয় … বিদেশে যাই, বড় বড় ফাইভ স্টার হোটেলে, ব্ল্যাকবেরি- স্ট্রবেরি আইসক্রিমের মিক্সড। খেতে কত মজা লাগে, এত ভালো লাগে। অথচ আমাদের যে কালোজাম, এগুলা যদি আমরা প্রসেস করে রাখতে পারতাম, কত দামি দামি আইসক্রিম হতো। আইসক্রিম পছন্দ করে না, এমন কোনো মানুষ নাই। অথচ এমন কিছু বাংলাদেশে পাওয়া যায় না … আমাদের সম্ভাবনা অনেক বেশি, শুধু উদ্যোগী হতে হবে।’

মহামারির কারণে দুই বছর বন্ধ থাকার পর এবার ফল মেলার আয়োজন হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন কৃষিমন্ত্রী। মেলা উদ্বোধন করার পর তিনি বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন। পরে সেমিনারে অংশ নেন।

রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট চত্বরে শনিবার পর্যন্ত তিনদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ফল মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। মেলার এবারের প্রতিপাদ্য ‘বছরব্যাপী ফল চাষে, অর্থ পুষ্টি দুই-ই আসে’।