ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

মজুদ পর্যাপ্ত, গুজব ছড়িয়ে সারের দাম বাড়ালে শাস্তি 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৭:২১, ১৪ ডিসেম্বর ২০২১

মজুদ পর্যাপ্ত, গুজব ছড়িয়ে সারের দাম বাড়ালে শাস্তি 

ছবি : পিআইডি

দেশে সব ধরনের সারের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। এ অবস্থায় গুজব ছড়িয়ে কেউ সারের মূল্যবৃদ্ধির চেষ্টা করলে তাকে শাস্তির আওতায় আনা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। 

মঙ্গলবার (১৪ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে সার মজুদের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যালোচনাশেষে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ডিসেম্বরে ইউরিয়া সারের ৩ লাখ ১ হাজার ৯০২ টন চাহিদার বিপরীতে মজুদ আছে ৮ লাখ ৩২ হাজার টন। অর্থাৎ ৫ লাখ টনেরও বেশি উদ্বৃত্ত আছে। এ মাসে টিএসপির চাহিদা ১ লাখ ১৪ হাজার টন, মজুদ আছে ১ লাখ ৯২ হাজার টন। ডিএপির চাহিদা ২ লাখ ৮৮ হাজার ৬১২ টন, এর বিপরীতে মজুদ আছে ৫ লাখ ৯৬ হাজার টন। এমওপির চাহিদা ১ লাখ ২৯ হাজার ১৮৫ টন, মজুদ আছে ৩ লাখ ১২ হাজার টন। 

এখন ২০২০ সালের ডিসেম্বরের তুলনায় সব রকমের সারই বেশি পরিমাণে মজুদ রয়েছে উল্লেখ করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গুজব ছড়িয়ে, কৃত্রিম সংকট তৈরি করে যেসব ডিলার, ব্যবসায়ী, দোকানদার বেশি দামে সার বিক্রি করবেন, তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি বলেন, আপাতত ৩০ দিন অব্যাহতভাবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। পরে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে প্রয়োজন হলে পুরো বোরো মৌসুমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।

বোরো মৌসুমে সারের প্রয়োজন হয় সবচেয়ে বেশি। সে বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সরকার সব রকমের আগাম প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে বলেও জানান কৃষিমন্ত্রী। তিনি বলেন, বর্তমানে সারের যে মজুদ রয়েছে এবং পাইপলাইনে যে সার রয়েছে, সব মিলিয়ে সারের কোনো রকম সংকট হবে না।

আন্তর্জাতিক বাজারে সারের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পেয়েছে মন্তব্য করে রাজ্জাক বলেন, যে সারের দাম প্রতি টন ৩০০ ডলার ছিল, তা বেড়ে এখন হয়েছে ৯৬৪ ডলার। তার মতে, আন্তর্জাতিক সিন্ডিকেট দাম বাড়িয়ে আমাদের মত দেশগুলোকে শোষণ করছে। আর এদিকে দেশে সুযোগসন্ধানী ব্যবসায়ীরা গুজব ছড়িয়ে কোথাও কোথাও এলাকাভেদে বিচ্ছিন্নভাবে সারের দাম বাড়ানোর চেষ্টা করছে। আমরা কঠোরভাবে এটি মনিটর করছি, মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা তৎপর রয়েছেন।

ব্রিফিংয়ে উপস্থিত শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, সারের উৎপাদন, আমদানি ও মজুদে কোনো সমস্যা নেই, সারের কোনো ঘাটতি নেই। কৃষকদের আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। তবে গুজব ও অপপ্রচার ছড়িয়ে সারের দাম বৃদ্ধি করে ফায়দা নেয়ার চেষ্টা চলছে। রাজনৈতিকভাবেও বিরোধীরা সুযোগ নিতে পারে।

বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান কামরুল আশরাফ খান বলেন, গত কয়েকদিন সার পরিবহনে কিছু সমস্যা ছিল, তা কেটে গেছে। কোনো ডিলার সারের দাম বেশি নিলে তার সদস্যপদ বাতিল করা হবে।

বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, কৃষি সচিব মেসবাহুল ইসলাম, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা, বিসিআইসির চেয়ারম্যান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা।